আজ কুমিল্লার চান্দিনা মুক্ত দিবস

0
81

আজ ১২ ডিসেম্বর, কুমিল্লার চান্দিনা মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে সারাদেশের মতো চান্দিনায়ও নিরস্ত্র বাঙালির ওপর হামলা চালিয়ে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী জ্বালিয়ে দেয় অসংখ্য বাড়িঘর। একপর্যায়ে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় মুক্তিকামী জনতা।

১১ ডিসেম্বর সকালে চাঁদপুর থেকে পাক হায়েনাদের একটি দল বরুড়া দিয়ে চান্দিনায় প্রবেশ করে। এবতারপুর ও হারং এর মাঝামাঝি মুক্তিযোদ্ধা, মিত্র বাহিনীর ও স্থানীয় জনতার প্রতিরোধে আত্মসমরপনে বাধ্য হয় পাকিস্তানী বাহিনীর ১৪৫৬ জন সেনা। মুক্তিযোদ্ধাদের অব্যাহত আক্রমণে ১২ ডিসেম্বর আত্মসমর্পণে বাধ্য হয় হানাদাররা।

দীর্ঘ যুদ্ধে পাকবাহিনীর হাতে নিহত হয় কুমিল্লার চান্দিনার বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাসহ নিরীহ জনতা। রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে পাক হায়েনাদের আত্মসমরপনে বাধ্য হয় এবং ১২ ডিসেম্বর চান্দিনাকে মুক্ত করে বীর যোদ্ধারা।

এদিকে চান্দিনায় পাক বাহিনী দক্ষিন দিক দিয়ে স্থানীয়দের বাড়ী ঘরে আগুন দিতে দিতে চান্দিনায় প্রবেশ করে উত্তর দিকে অগ্রসর হতে থাকে। মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধে পাক বাহিনীর একটি দল ছত্রভঙ্গ হয়ে চলে যায়। সেখানে সম্মূখ যুদ্ধে বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা নিহত হয়। সেখানে একজন মুক্তিযোদ্ধা সাত পাকিস্তানী সেনাকে হত্যা করে।

মুক্তিযোদ্ধাদের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় ১২ ডিসেম্বর মুক্ত হয় চান্দিনা। চান্দিনা থানার দখল নেয় মুক্তিযোদ্ধারা। বর্তমানে সেই স্মৃতি চিহ্নগুলো সংরক্ষনের দাবি জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয়রা। মুক্তিযুদ্ধের সেই বীর সেনাদের কৃতজ্ঞচিত্তে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে চান্দিনাবাসী।