মানিক লাল ঘোষ:

আজ ২৩ জুন। পাকিস্তানের বৈষম্য আর শোষণের বিরুদ্ধে অধিকার আদায়ে মুক্তির সারথী আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

৬৯ বছর আগে এই দিনে আত্মপ্রকাশ করে গণমানুষের অধিকার আদায়ের প্রত্যাশায় এই রাজনৈতিক দলটি।

ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় গণমানুষের কল্যাণে আরো নিবেদিত হবে দলটির কার্যক্রম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে- এমন প্রত্যাশা দলটির নেতা ও ইতিহাসবিদদের।

গত তিন যুগেরও বেশী সময় ধরে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে যে ভবনটি কেন্দ্রীয় কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করা হতো আওয়ামীলীগের, তা এখন নতুন রুপ পাচ্ছে ২৩ জুন।

প্রতিষ্ঠার প্রায় সাত দশক পরে ১০ তলার আধুনিক ভবনের নবনির্মিত কার্যালয়ে উঠতে যাচ্ছেন দলটির নেতাকর্মীরা।

দৃষ্টি নন্দন এই নবনির্মিত ভবনে রয়েছে আধুনিক নানা সুযোগ সুবিধা। মূল দলের পাশাপাশি এই ভবনে ঠাঁই হবে সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনেরও। নতুন ভবনের অপেক্ষায় দলটির নেতাকর্মীরা।

আট কাঠা জায়গায় ৯৯ বছরের জন্য ইজারা নিয়ে তৈরি হয়েছে এই ভবনটি। আধুনিক প্রযুক্তিতে নির্মিত ভবনটির পুরোটাই থাকবে ওয়াইফাইয়ের আওতায়।

২৩ জুন দলের সভাপতি শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন এই নতুন ভবন। নবনির্মিত নতুন ভবনে শুরু হবে আওয়ামী লীগের নতুন পথচলা।