আফ্রিকার পূর্বাংশের ফাটল ক্রমশই বাড়ছে

0
1435

মার্জিয়া হাসান:

একটি বিচিত্র মহাদেশের নাম আফ্রিকা। ভূতত্ত¡বিদদের মতে, প্রায় ১ কোটি ৩৮ লক্ষ বছর আগে আফ্রিকা ভেঙে তৈরি হয়েছিল দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশ। আর সেই দুই মহাদেশের মাঝে সৃষ্টি হয়েছিল আটলান্টিক মহাসাগর।

এবার ইতিহাসের পুনরাবৃত্তির শঙ্কা প্রকাশ করছেন ভূ-বিজ্ঞানীরা। কারন আফ্রিকার পূর্বাংশে বিশাল ফাটল ধরেছে আর এই ফাটল ক্রমশই বাড়ছে।

আফ্রিকার পূর্বাংশে ফাটল ধরেছে। তাতে আবারও ভাঙনের কবলে পড়বে ১০০ কোটি মানুষের এই মহাদেশটি। এতে আফ্রিকার মূল ভূখ থেকে আলাদা হয়ে যাবে সোমালিয়া, ইথিওপিয়ার অর্ধেকটা, কেনিয়া এবং তানজানিয়ার মতো দেশগুলো। তৈরি হবে নতুন আরেকটি সমুদ্র অথবা মহাসাগর।

গত কিছুদিনে দক্ষিণ-পশ্চিম কেনিয়ার একটা বড়ো অংশ জুড়ে বিশাল এক ফাটল সৃষ্টি হয়েছে যা ক্রমশই বাড়ছে। আফ্রিকার রিফট ভ্যালির অংশ, সুসওয়া অঞ্চলে দেখা দিয়েছে এই ফাটল।

ভূ-তাত্তিকভাবেই রিফট ভ্যালিতে ফাটল দেখা যাওয়াটা স্বাভাবিক। কিন্তু সাধারণত বছরে কয়েক মিলিমিটার করে বাড়ে এ সব ফাটল। কিন্তু এবার সেই ফাটল খুব দ্রতগতিতে বেড়ে বিশাল আকার ধারণ করছে ।

টেকটনিক প্লেটের সক্রিয়তায় ক্রমশ আলাদা হতে শুরু করেছে আফ্রিকা। বহু বছর আগে গোটা আফ্রিকা মহাদেশটাই একটি মাত্র টেকটনিক প্লেটের ওপর থাকলেও ক্রমশ সেটি দু’টো প্লেটে বিভক্ত হয়ে যায়। গঠিত হয়, সোমালি এবং নুবিয়ান প্লেট। প্লেট ২টি ধীরে ধীরে একে এপরের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। সেই কারনেই তৈরি হচ্ছে ফাটল।

তবে বিষয়টি নিয়ে এখনই দুঃশ্চিন্তাগ্রস্থ হওয়ার কারণ নেই। ভূতাত্তি¡করা বলেছেন- বর্তমান প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে আফ্রিকা বিভক্ত হতে এখনও কমপক্ষে ৫০ লাখ বছর সময় লাগবে। অতএব, আফ্রিকাবাসীও আপাতত শঙ্কামুক্ত থাকতে পারে।