আবহাওয়ার পূর্বাভাস দেবে পানিতে ভাসমান ড্রোন

0
75

চরম আবহাওয়ার পূর্বাভাস পেতে এবং বিশ্বের পরিবর্তনশীল আবহাওয়ার ধরন বুঝতে স্বয়ংক্রিয় ড্রোনের ব্যবহার শুরু করেছেন মার্কিন সমুদ্র গবেষকরা।

২৩ ফুট দীর্ঘ এই ড্রোনটি বানিয়েছে বে এরিয়ার স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান ‘সেইলড্রোন’। সাগরে ভেসে আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানাবে এই ড্রোনটি, বলা হয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনবিসি’র প্রতিবেদনে।

এ ধরনের প্রতিটি ড্রোনে ভিন্ন ভিন্ন সেন্সর ব্যবহার করা যেতে পারে। এই সেন্সরগুলো তাপমাত্রা, বায়ু, আর্দ্রতা, সূর্যের বিকিরণ এবং আবহাওয়ার ধরনের রিয়েল-টাইম তথ্য সংগ্রহ করে তা পাঠাতে পারবে বলে জানানো হয়।

বর্তমানে দুইটি সেইলড্রোন থেকে তথ্য সংগ্রহ করছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশানিক অ্যান্ড অ্যাটমোস্ফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (নোআ)। প্রশান্ত মহাসাগর হয়ে ক্যালিফোর্নিয়ায় ফিরে যাচ্ছে এই ড্রোনগুলো। প্রচলিত পদ্ধতিতে পাওয়া তথ্যের তুলনায় এই ড্রোনের পাঠানো তথ্য কতোটা নিখুঁত তা পরিমাপ করাই লক্ষ্য সংস্থাটির।

পরীক্ষা সফল হলে এই ড্রোন ব্যবস্থা নোআ’র পুরানো বুই ব্যবস্থাকে সরাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ১৯৮০ সাল থেকে আবহাওয়ার তথ্য পর্যবেক্ষণে এই ব্যবস্থা ব্যবহার করা হচ্ছে।

এর আগে উত্তর মেরু অঞ্চলে সামুদ্রিক জীবন পর্যবেক্ষণ করতে সেইলড্রোন ব্যবহার করেছে মার্কিন সংস্থাটি।

সাগরের জন্য একই ধরনের ড্রোন বানিয়েছে বোয়িংয়ের লিকুইড রোবোটিকস। সামুদ্রিক ও আবহাওয়ার তথ্য সংগ্রহ করতে এই ড্রোন ব্যবহার করে থাকে সরকারী সংস্থাসহ বিভন্ন প্রতিষ্ঠান।