আবার সরব মহিলা সমিতি মঞ্চ

0
48

সাঁওতালদের জীবনযাত্রা যেন এক করুণ গাথা। দুঃখ-কষ্ট আর অভাব-অনটনই তাদের জীবনের নিত্যসঙ্গী। শোষণ-অত্যাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করে নিজেদের অধিকার আদায় করতে গিয়েই পেরিয়ে যায় জীবনের প্রতিটি ক্ষণ। তাদের বসতভিটাও দখল করে নেয় সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা। এমন গল্প নিয়েই নাটকের দল আরণ্যক মঞ্চায়ন করেছে তাদের দর্শকপ্রিয় নাটক ‘রাঢ়াঙ’।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় মহিলা সমিতির নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তনে রাঢ়াঙ মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ‘মহিলা সমিতি নাট্যোৎসব’। এর আয়োজন করেছে গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন। সন্ধ্যায় প্রদীপ প্রজ্বালনের মাধ্যমে উৎসব উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার, মামুনুর রশীদ, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী ও মহিলা সমিতির নির্বাহী সদস্য নিপা সারোয়ার। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সেক্রেটারি জেনারেল আকতারুজ্জামান।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, মহিলা সমিতির মঞ্চের সঙ্গে বাংলাদেশের গ্রুপ থিয়েটারের চর্চা ইতিহাস জড়িয়ে আছে। সংস্কারের কারণে দীর্ঘদিন মঞ্চটি বন্ধ ছিল। এতে দর্শক হারিয়েছে মিলনায়তনটি। এ ধরনের উৎসব দর্শক ফিরিয়ে আনতে কাজ করবে। আগামী অর্থবছরেও যেন রেয়াতি হারে মহিলা সমিতির মিলনায়তনের ভাড়া দেওয়া যায় সে জন্য পুনরায় সরকার ভর্তুকি দেবে বলে মন্ত্রী আশ্বাস দেন।

স্মৃতিচারণা করে লিয়াকত আলী বলেন, ‘মহিলা সমিতি মানেই আমাদের শিহরণ। কেননা, আমাদের সবার শুরুটা এখান থেকেই। গ্রুপ থিয়েটারের চর্চা এবং বিকাশে এ মঞ্চের ভূমিকা অপরিসীম।’

‘রাঢ়াঙ’ আরণ্যকের ৪০ তম প্রযোজনা। নাটকটির রচনা ও নির্দেশনায় ছিলেন নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ। অভিনয় করেছেন মামুনুর রশীদ, তমালিকা কর্মকার, শামীমা শওকত, আমানুল হক, হাসিম মাসুদ, আরিফ হোসেন, সাজ্জাদ সাজু, রুহুল আমিন প্রমুখ।

আজ মঙ্গলবার উৎসবের দ্বিতীয় দিন দেশ নাটক মঞ্চস্থ করবে ‘নিত্যপুরাণ’ নাটকটি। ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এ উৎসব। উৎসবে গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের ১৫টি দল তাদের জনপ্রিয় ১৫টি নাটক মঞ্চস্থ করবে।