আমির খানকে যে কারণে বিয়ে করেছেন কিরণ

0
120

বলিউডের তিন খানকে প্রায়ই একটা প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়—পঞ্চাশ পেরিয়ে আজও তাঁরা তারুণ্যের প্রতীক, এর রহস্য কী? না, এর কোনো সদুত্তর আমির খান, সালমান খান, শাহরুখ খান—কেউই দিতে পারেন না। এই উত্তর তাঁদের জানা নেই। আসলে এই তিন খান মনের দিক থেকে আজও তরুণ তুর্কি। তাই বয়স তাঁদের ছুঁতে পারেনি।

১৪ মার্চ বয়স ৫৩ হলো আমির খানের। গতকাল বুধবার আমির খান মুম্বাইয়ে তাঁর বাসায় সাংবাদিকদের সঙ্গে জন্মদিন উদ্‌যাপন করেছেন। তিনি ছিলেন যোধপুরে, ‘থাগস অব হিন্দোস্তান’ ছবির শুটিংয়ে। সকালের বিমানে যোধপুর থেকে মুম্বাই আসেন। আম্মি, স্ত্রী কিরণ আর ছেলে আজাদের সঙ্গে জন্মদিন কাটিয়ে আগামীকাল শুক্রবার উড়ে যাবেন যোধপুরে।

সব ক্লান্তি ঝেড়ে সাংবাদিকদের সামনে আসেন আমির খান। সঙ্গে ছিলেন কিরণ রাও। কেক কাটার পর সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের মুখোমুখি হন এই দম্পতি। আমির খান বলেন, ‘মুম্বাইয়ে আসার কোনো পরিকল্পনা ছিল না। মঙ্গলবার রাতে ঠিক করেছি আর সকালে মুম্বাই চলে আসি। ভিক্টর (পরিচালক) আমাকে দুই দিনের ছুটি দিয়েছেন। অন্য বছরের মতো এবারও আম্মি, আজাদ আর কিরণের সঙ্গে জন্মদিন কাটাতে পারছি। সবার শুভেচ্ছা পেয়ে খুব ভালো লাগছে। তবে বড় চমক পেয়েছি কিরণের কাছ থেকে। সকালে বিমানবন্দরে নেমে দেখি, ও আমাকে নিতে এসেছে।’ আর তখন কিরণ রাও মিষ্টি হেসে বলেন, ‘এটুকু তো করতেই পারি। ভেবেছিলাম যোধপুর যাব। রাতে আমির জানাল, ও মুম্বাই আসছে। তাই সকালে আমিরকে আনতে বিমানবন্দরে চলে যাই।’

যশরাজের ‘থাগস অব হিন্দোস্তান’ ছবিতে আমির খান আর অমিতাভ বচ্চনকে প্রথম একসঙ্গে দেখা যাবে। আমির খান বলেন, ‘এই বছরটা আমার জন্য বিশেষ হতে যাচ্ছে। আমার স্বপ্ন এবার সফল হবে। আমি বচ্চন স্যারের সঙ্গে প্রথম কাজ করছি। ছবিটা মুক্তির জন্য অপেক্ষা করছি। আমি চাই “থাগস অব হিন্দোস্তান” আমার পাশাপাশি অমিতাভ বচ্চনের জন্যও স্মরণীয় ছবি হয়ে উঠুক।’

গত মঙ্গলবার অমিতাভ বচ্চনের অসুস্থতার খবর জানা যায়। তিনিও আমিরের সঙ্গে যোধপুরে ‘থাগস অব হিন্দোস্তান’ ছবির শুটিংয়ে ছিলেন। আমির খান বলেন, ‘অমিতাভ বচ্চনের পিঠে আর কাঁধে ব্যথা হয়েছে। রাতে তিনি খুব কষ্ট পেয়েছেন। তবে তিনি দ্রুত সেরে উঠছেন। অনেক দিন পর তাঁকে মারপিটের দৃশ্যে দেখা যাবে। এই ছবিতে মারপিটের অনেক দৃশ্য আছে। অমিতাভ বচ্চনের জন্য খুব চ্যালেঞ্জিং কাজ।’ জানালেন, এবার জন্মদিনের প্রথম শুভেচ্ছা তিনি পেয়েছেন অমিতাভ বচ্চনের কাছ থেকে। তিনি বলেন, ‘শুটিং স্পটে হঠাৎ মাইকে সেই কণ্ঠস্বর ভেসে আসে। অমিতজি আমাকে প্রথম শুভেচ্ছা জানান।’

জন্মদিনের দিন উঠে আসে আমিরের বদভ্যাসের কথা। আমির নিজের কোন খারাপ অভ্যাস ছাড়তে চান? হেসে বললেন, ‘আমার অদ্ভুত ব্যক্তিত্বের সমস্যা আছে। এটা বদলাতে চাই।’ পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন কিরণ। আমিরকে তিনি বলেন, ‘এটা তোমার চরিত্রের একটা দিক। তোমার খারাপ অভ্যাস কিন্তু নয়।’ আমির খান বলেন, ‘ঠিকই তো! আমি ধূমপান ছাড়তে চাই। চেষ্টা করেছি, কিন্তু এখনো পুরোপুরি ছাড়তে পারিনি।’

আমিরের কোন দিকগুলো তাড়াতাড়ি বদলাতে চান? কিরণ বলেন, ‘আমিরের কিছুই বদলাতে চাই না। তবে একটা বিষয়ে বারবার ওকে বলি, ও আমাদের সঙ্গে বেশি সময় কাটাতে পারে না। সারাক্ষণ সিগারেট খায়। ফোনে বেশি ব্যস্ত থাকে।’ আর আমিরের চরিত্রের কোন দিকগুলো কিরণ বদলাতে চান না? কিরণ বলেন, ‘অনেক কিছুই আছে। সবার আগে আমিরের সহানুভূতিশীলতা এবং বুদ্ধিমত্তার কোনো পরিবর্তন চাই না। এ কারণেই আমি আমিরকে বিয়ে করেছি। এ ছাড়া আমির খুব ভালো বোঝে। সবাইকে নিয়ে চলতে ভালোবাসে, সবার খেয়াল রাখে। ওর চরিত্রের এই দিকগুলো আমাকে খুব আকৃষ্ট করেছে। আর সব থেকে বড় কথা, আমিরের তীক্ষ্ণ সৃজনশীল মস্তিষ্ক। যেখান থেকে জন্ম নেয় নতুন আর ব্যতিক্রমী ভাবনা।’ আমিরও কিন্তু কম জান না। কিরণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘কিরণ আমার জীবনীশক্তি। ও জীবনে আসার পর আমি অনেক এনার্জি পেয়েছি। আগে একটু গম্ভীর ছিলাম। ও আসার পর বুঝেছি, জীবনের আসল খুশি কী!’

সাংবাদিকদের সঙ্গে নির্ভেজাল আড্ডার পর ছেলে আজাদকে নিয়ে আমির খান বেরিয়ে পড়েন। চলে যান টেনিস ক্লাসে।