উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলেও খাদ্য তালিকায় পিছিয়ে মাছ

0
148

মাহবুব সৈকত : ভাতে মাছে বাঙ্গালীর বাংলাদেশে মাছের উৎপাদন বাড়ছে। শুধু প্রাকৃতিক মাছই নয় গবেষকদের গবেষণায়ও উদ্ভাবিত হচ্ছে নতুন নতুন মাছ। আর অনেকেই এখন মাছ চাষকে নিচ্ছেন পেশা হিসেবে। এতে কর্মসংস্থানও হচ্ছে বহুলোকের।

দেশে আবার ও সুদিন ফিরেছে মাছের। দেশের বিজ্ঞানীদের গবেষনায় নতুন নতুন মাছের উদ্ভাবন এবং পেশাজীবী চাষিদের পরিশ্রম আর আন্তরীকতায় মাছে এখন পরিপূর্ন। এক সময় শুধু প্রাকৃত উৎসের উপর ই নির্ভর করতে হলেও এখন চাষের মাছ চাগিদা পুরন করছে অনেকাংশে।

সংশ্লিষ্ট দপ্তরের তথ্যানুযায়ী, তিন দশক আগেও যেখানে মাছের উৎপাদন ছিলো মাত্র ৮ লাখ মেট্রিকটন, সেখানে বর্তমানে উৎপাদন হচ্ছে প্রায় ৪২ লাখ মেট্রিকটন। দৃষ্টি কেড়ে নেয়ারমত জীবে জল আসা এমন মাছ কিনতে মন চাইবে সবার ই, সাধ এবং সাধ্য অনুযায়ী কিনে ও নিচ্ছেন ক্রেতারা।

তবে বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই খাদ্য তালিকায় পছন্দের দ্বিতীয় সারিতে রাখছে মাছকে, যদিও ব্যতিক্রম ও রয়েছে? তথ্যানুযায়ী, বিগত এক দশকে সবার কাছে ই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে চিকেন ফ্রাই জাতীয় খাবার।

তবে বাজারে থাকা নিন্মমানের ক্ষতিকর খাদ্য খাইয়ে বড় করা বিভিন্ন জাতের মুরগী দিয়ে তৈরী খাবার, ক্ষতিকর বলে প্রতিয়মান হয়েছে মানবদেহের জন্য। অন্য দিকে অবৈজ্ঞানিক পন্থায় এ মাংশ সংরক্ষন করে তা বাজারজাত করার বিষয় ও হাতে নাতে এসেছে প্রমান।

ফলে বানিজ্যিকভাবে উৎপাদিত মাংশের প্রতি আগ্রহ কমতে শুরু করেছে ভোক্তাদের। তা হলে খাদ্য হিসেবে মাছ পছন্দের তালিকায় এক নম্বর হতে আর বাধা কোথায়।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মাছ দিয়ে তৈরী হয় মুখরোচক রকমারী খাবার, সে অনুযায়ী আগায়নি বাংলাদেশ, এখনো অধিকাংশ পরিবার এবং রেস্তরায় মাছ রান্না হয় সনাতনি পদ্ধতিতে ই। তবে পশ্চিমাসহ অন্যান্য দেশের আদলে রাজধানীতে ও মাছের তৈরী বিভিন্ন খাবারের পসরা নিয়ে ভোক্তাদের নজর কেরেছেন যারা ইফতেখার আহমেদ খান তাদের মধ্যে অন্যতম।

মাছের রকমারি খাবার তৈরীর আগ্রহ কি কে তৈরী হলো আলাপচারিতায় উঠে আসে সে গল্প। খাবার হিসেবে মাছ কে জনপ্রিয় এবং রপ্তানী উপযোগী করতে তিনিও একমত হন বিশেষজ্ঞদে সাথে। মাছ সম্মত মাছ উৎপাদনে সম্মিলিত উদ্যোগের কথা ও বলছেন সংশ্লিষ্টরা।