রাকিব হাসান :

এ মাসেই মহাকাশে উড়বে দেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। এরই মধ্যে নির্মান কাজ শেষ করেছে ফ্রান্সের একটি প্রতিষ্ঠান। স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপনের মাধ্যমে মহাকাশে বাংলাদেশের অস্তিত্ব প্রমান করবে বলে মনে করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহম্মেদ পলক। আর বিশেষজ্ঞরা বলেন, দেশীয় অর্থ সাশ্রয়ের পাশাপাশি আয় হবে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা।

৩ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে ফ্রান্সের থেলেস এলেনিয়া স্পেস নামের একটি প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে শেষ করেছে এর নির্মান কাজ । উৎক্ষেপনের জন্য রকেট নির্মাণ করেছে অ্যালেন মস্কের প্রতিষ্ঠান স্পেস এক্সপ্লোরেশন টেকনোলজি কর্প।

সঠিকভাবে মহাকাশে পাঠানো গেলে আট দিন পর মহাকাশে বরাদ্ধ পাওয়া ১১৯ দশমিক ১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের নির্দিষ্ট জায়গায় পৌঁছবে স্যাটেলাইটটি । সেখান থেকে নজরদারি চালাতে সক্ষম হবে বাংলাদেশ। পাওয়া যাবে উন্নত জিপিএস ব্যবস্থা, দুর্যোগ সতর্কীকরন বার্তা, গবেষণাসহ বিভিন্ন সুবিধা।

স্যাটেলাইটের ট্রান্সপন্ডার বিদেশে ভাড়া দিয়ে প্রতি বছর ৫০ লাখ মার্কিন ডলার আয় করা যাবে, পাশাপাশি দেশীয় সম্প্রচার মাধ্যমগুলো এই স্যাটেলাইট ব্যবহার করবে। ফলে বিপুল পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞ ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু।