কষ্ট দেয়ার জন্যই খালেদা জিয়াকে সরকার সুচিকিৎসার সুযোগ দিচ্ছে না: নজরুল ইসলাম

0
84

শারীরিক এবং মানসিকভাবে কষ্ট দেয়ার জন্যই সরকার খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসার সুযোগ দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক ‘প্রতিবাদ সভায়’ এই অভিযোগ করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য।কারাগারে অসুস্থ খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসা বঞ্চিত করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

তিনি আরো বলেন, খালেদা জিয়ার প্রতি যে আচরণ করা হচ্ছে তা রাজনৈতিক আচরণ নয়। তার স্বাস্থ্যের অবণতি হলে জনগণ সরকারকে ক্ষমা করবে না।

এটা সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বন্দী থাকা শেখ হাসিনা বেসরকারি হাসপাতাল স্কয়ারে চিকিৎসা করিয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন নজরুল ইসলাম খান। আর এখন তাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কেন ইউনাইটেডে নেয়া যাবে না, তা জানতে চান তিনি।

 

 

নজরুল বলেন, ‘যখন শেখ হাসিনা কারাগারে ছিলেন তখন স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। আওয়ামী লীগ নেতারা যারা বড় বড় কথা বলছেন তারা পিজি (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়) হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন দিনের পর দিন। অথচ বেগম খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেট হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে দেয়া হচ্ছে না।’

সম্প্রতি কারাগারে বিএনপি নেত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের কথা তুলে ধরে নজরুল বলেন, ‘আমাদের খুব কষ্ট হয়েছে। কারণ আমাদের নেত্রী খুব অসুস্থ। তিনি বলছিলেন, তার পিঠে ও ঘাড়ে ব্যথা এবং হাত ও পা শক্ত হয়ে যায়। আর এগুলোর প্রচণ্ড ব্যথার কারণে তিনি ঘুমাতে পারেন না।

এমনিতে দেরি হয়ে গেছে। খোদা না করুন, তার সুচিকিৎসা বিলম্বিত হওয়ার জন্য যদি উনার স্বাস্থ্যের কোন ক্ষতি হয় তাহলে জনগণ সরকারকে ক্ষমা করবে না বলেও জানান তিনি।

কারা কর্তৃপক্ষ খালেদা জিয়াকে বেসরকারি হাসপাতালে নেয়ার প্রস্তাব পাঠিয়েছে দাবি করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘তার চিকিৎসা দেয়ার জন্য জেল কর্তৃপক্ষের আবেদন মানে হচ্ছে না কেন? শুধুই কষ্ট দেওয়ার জন্য।’

সরকারের বিরুদ্ধে গণঅভ্যুত্থান ঘটাতে বিএনপির আন্দোলনে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বানও জানান নজরুল।

‘আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করে যাচ্ছি। এজন্য নেতাকর্মীদের প্রতি অনুরোধ থাকবে, জনগণকে সুসংগঠিত করুন। অধিক সংখ্যায় জনগণকে আন্দোলনে সম্পৃক্ত করুন। জনমতকে সুসংহত করুন। যাতে করে আমরা প্রয়োজনে গণঅভ্যুত্থান ঘটাতে পারি। এটাই আজকে সিদ্ধান্ত।’

 

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মাহবুব উদ্দীন খোকন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমাতুল্লাহ, কৃষদল কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আলিম হোসেন, সেলিম হোসেন প্রমুখ এ সময় বক্তব্য রাখেন।