কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে হারিয়ে সিলেট সিক্সার্সের টানা দ্বিতীয় জয়

0
70

বিপিএলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে হারিয়ে সিলেট সিক্সার্সের টানা দ্বিতীয় জয় নিজেদের করে নিল। শনিবার টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ঢাকা ডায়নামাইটসকে ৯ উইকেটে হারিয়ে শুরু সিলেটের। রোববার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে এক আসর আগের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকেও ৪ উইকেটে হারিয়ে দিল সিলেট।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে টস জিতে আগে ফিল্ডিং বেছে নেন সিলেট অধিনায়ক নাসির। ঢাকার বিপক্ষেও টস জিতে ফিল্ডিং নিয়ে সফল ছিলেন। সফল এ ম্যাচেরও। নির্ধারিত ২০ ওভারে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৬ উইকেটে ১৪৫ রানের বেশি করতে পারেনি।

জবাব দিতে নেমে উপুল থারাঙ্গার টানা দ্বিতীয় ফিফটি পেলেন। তাতে সহজ জয়ের পথে ছুটে চলা সিলেটের। শেষ দিকে নাটকীয় মোড়ের পর ৪ উইকেটের জয় সিলেটের। চার মেরে দলকে জয় এনে দেন নুরুল হাসান সোহান।

শেষ দিকে ম্যাচটা অবশ্য দারুণ নাটকীয় মোড় নিল। শেষ ওভারে দরকার ছিল ১০ রান। হাতে ৫ উইকেট। ব্রাভো প্রথম বলেই ফিরিয়ে দিলেন শুভাগত হোমকে। তখন নুরুল হাসান সোহান উইকেটে এসে বিশাল এক ছয়ে চাপ কিছুটা দূর করেন। পরের দুই বলে একটি করে সিঙ্গেল নেন সোহান ও প্লানকেট। এরপর ১ বল হাতে থাকতেই চার মেরে দলকে জয় এনে দেন সোহান।

ঢাকাকে হারানোর পর নাসির বলেছিলেন, প্রথম ৬ ওভারে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের কথা। এম্যাচের মোমেন্টাম খোঁজতে গেলে সেই একই কথাই বলতে হবে। প্রথম ৬ ওভারেই কুমিল্লার ২ উইকেটে ফেলে দেয় সিলেট। এরপর পর থেকেই পথ হারায় কুমিল্লা।

আর এ ম্যাচেও দলকে প্রথম সাফল্য এনে দেন নাসির। ইমরুল কায়েসকে (১২) পরিস্কার বোল্ড করে ফেরান তিনি। এরপর লিটন দাস (২১) ও জস বাটলাককে (২) ফেরান তাইজুল ইসলাম। ৪৪ রানে ৩ উইকেট পড়ে দলটির।

চতুর্থ উইকেট জুটিতে মারলন স্যামুয়েলস ও অলক কাপালির ব্যাটে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা কুমিল্লা। তবে অলক ১৯ বলে ২ ছয় ও ১ চারে ফিরে যান ২৬ রান করে। মারলন স্যামুয়েস ৪৭ বলে ৩ ছয় ও ২ চারে ৬০ রান করে দলকে বলার মতো পুঁজি এনে দেন। সিলেটের পক্ষে ক্রিশমার সান্টোকি ও তাইজুল ইসলাম ২টি করে উইকেট নেন। ১ টি করে উইকেটে পেয়েছেন নাসির ও প্লানকেট।

জবাব দিতে নেমে থারাঙ্গা ও ফ্লেচারে দারুণ শুরু করে সিলেট। উদ্বোধনী জুটিতেই ৭৩ রান যোগ করে দুজন। ফ্লেচার ৩৬ রান করে ফিরলেও টানা দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নেন থারাঙ্গা। ৪০ বলে ২ ছয় ও ৫ চারে ৫১ রান করেন এই লঙ্কান ওপেনার।

এরপর অল্প সময়ের মধ্যে সাব্বির রহমান, থারাঙ্গা ও নাসির হোসেন বিদায় নিলে কিছুটা চাপে পড়ে সিলেট। সেই চাপ অবশ্য নুরুল হাসান এক ফুৎকারেই উড়িয়ে দেন। সোহান ৩ বলে ১ ছয় ও ১ চারে ১১ রান করে অপরাজিত থাকেন।