কোয়ার্টার ফাইনালের শেষ ম্যাচে মাঠে নামছে ইংল্যান্ড-সুইডেন

0
65

শেষ ষোলোর অগ্নিগর্ভ ম্যাচে টাইব্রেকারে শেষ পর্যন্ত কলম্বিয়ার বিপক্ষে শেষ হাসি হাসে ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপে কখনও টাইব্রেকারে জিততে না পারার দুর্ভাগ্য পেছনে ফেলেছে ইংলিশরা। শেষ চারে ওঠার লড়াইয়ে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় সুইডেনের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড।

তারকাখ্যাতি ও শক্তির বিচারে সুইডেনের বিপক্ষে এগিয়ে থেকেই মাঠে নামবেন হ্যারি কেনরা। কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠার পথে ইংলিশরা দুর্দান্ত খেলেছে। নিজেদের গ্রুপ থেকে রানার্সআপ হয়ে ওঠা ইংল্যান্ড সুন্দর ফুটবলে সবার মন ভরিয়েছে।

অধিনায়ক হ্যারি কেনের ওপরই এ ম্যাচের স্পটলাইট থাকবে। তিন ম্যাচে ছয় গোল করে তিনিই বিশ্বকাপের গোল্ডেন বুট জেতার সবচেয়ে বড় দাবিদার। সুইডিশদের বিপক্ষে ম্যাচেও থ্রি লায়নরা জিতবে বলে বিশ্বাস ইংলিশ কোচ গ্যারেথ সাউথগেটের, ‘পেনাল্টি শুটআউটে বিশ্বকাপে প্রথম জয় পেয়েছি। আশা করি, শেষ চারে ওঠার পথেও ইংলিশদের বড় সাফল্য উপহার দিতে পারব।’

ইংলিশ ডিফেন্ডার জন স্টোনস আরও একধাপ এগিয়ে বললেন বিশ্বকাপ জেতার স্বপ্নের কথা, ‘আমরা ট্রফি নিয়ে ফিরতে চাই।’

তবে সুইডেনকে হিসাব থেকে বাদ দিলে ভুল হবে। জার্মানির গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে শেষ ষোলোয় উঠেছিল সুইডেন। শেষ ষোলোর ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ে শেষ আটে এসেছে সুইডিশরা।

১৯৫৮ সালে বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলা সুইডেন নিজেদের বিশ্বকাপ সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখতে মরিয়া হয়েই লড়বে আজ। ইংলিশ ডিফেন্ডার জন স্টোনসও তা জানেন, ‘আপনি যদি বলেন বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল সহজ, তাহলে ভুল করবেন। কখনও কখনও এমন দলই আপনাকে আঁস্তাকুড়ে ছিটকে ফেলবে। তারাও ভালো দল।’

অনেকেই মনে করেছিলেন, জ্লাটান ইব্রাহিমোভিচের অবসরের পর সুইডেন বিশ্বকাপের মূলপর্বে আসতে পারবে না। সেই অনুমান ভুল প্রমাণ করে সুইডিশরা রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে নেদারল্যান্ডস ও ইতালিকে ছিটকে দেয়ার পর মূলপর্বে গতবারের চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে বাড়ির পথ দেখিয়ে দিয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়া এবং মেক্সিকোর বিপক্ষে পেয়েছে জয়। সুইডিশ গোলকিপার ইয়োনসন বলেন, ‘এখন আমরা সম্মিলিত শক্তির একটি দলে পরিণত হতে পেরেছি। আমরা সবাই মিলে একসঙ্গে খেলি। সম্মিলিত বোঝাপড়ার মাধ্যমে। জ­াটান ছিল একক নৈপুণ্যের ওপর নির্ভরশীল, এ কারণে খেলাটাও তাকে কেন্দ্র করে হতো। এখন পুরো দল একসঙ্গে খেলতে পারছি।’