খালেদা জিয়াকে পরিত্যাক্ত কারাগারে রেখে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে: বিএনপি

0
109

খালেদা জিয়াকে পরিত্যাক্ত কারাগারের নির্জন সেলে রেখে মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতারা।

মঙ্গলবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ২০ দলীয় জোটের অবস্থান কর্মসূচিতে দেওয়া বক্তব্যে এ কথা বলা হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায়ে ন্যায় বিচার বঞ্চিত হয়েছে দাবি করে গণ আন্দোলনের মাধ্যমে বিএনপি চেয়ারপার্সনকে মুক্ত করা হবে বলেও জানান তারা।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীতে বিএনপির অবস্থান কর্মসূচিতে তারা এসব কথা বলেন। মুক্ত খালেদা জিয়া ছাড়া দেশে আগামীতে কোন নির্বাচন হতে দেয়া হবে না বলেও ঘোষণা দেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা।

ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, ‘একটি মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে খালেদা জিয়াকে নির্জন কারাগারে আটক করে রাখা হয়েছে। এ আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা তাঁকে কারাগার থেকে মুক্ত করব। পাশাপাশি আইনি প্রক্রিয়াও চালিয়ে যাব।’

সরকারের নির্দেশে আদালত মিথ্যা মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসনকে সাজা দিয়েছে অভিযোগ করে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘এর প্রতিবাদে নেতাকর্মীরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় কর্মসূচি পালন করতে গেলেও সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মাধ্যমে তাতে বাধা দিয়েছে।

আমরা শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি এবং প্রতিবাদ পালন করে যাব। কিন্তু আজকের এই কর্মসূচি পালনের জন্য এরই মধ্যে তিনটি জায়গা পরিবর্তন করতে হয়েছে। আমাদের কোথাও দাঁড়াতে দেওয়া হচ্ছে না।

কিন্তু এর পরও আজকের এ উপস্থিতি প্রমাণ করে, রাস্তায় নামার সুযোগ দেওয়া হলে সারা দেশের মানুষ রাস্তায় নেমে আসবেন। কারণ, একজন জনপ্রিয় নেত্রীকে কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে। এ জন্য এই সরকারকে অনেক খেসারত দিতে হবে।’

দেশে গণতন্ত্র বাদ দিয়ে একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে অভিযোগ করে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার মাধ্যমে আমরা গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনব।’

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘খালেদা জিয়া দেশের ১৬ কোটি মানুষের জনপ্রিয় নেত্রী। দেশের মানুষকে মামলা হামলা দিয়ে দমিয়ে রাখা যাবে না।

এ দেশের মানুষ আন্দোলনের মাধ্যমে তাঁকে মুক্ত করে নয়ে আসবে। এ লড়াই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার লড়াই। জনতার উত্তাল তরঙ্গের মধ্য দিয়েই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনা হবে।’

আজ সারা দেশে নেতাকর্মীদের মামলা দিয়ে নির্যাতন করা হচ্ছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এমামলা হামলা দিয়ে বিএনপিকে দমিয়ে রাখা যাবে না।’ মির্জা ফখরুলের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শেষ হয় আজকের অবস্থান কর্মসূচি।

অবস্থান কর্মসূচিতে আরো বক্তব্য দেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, নজরুল ইসলাম খান ও মির্জা আব্বাস।

এদিকে চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট, ময়মনসিংহ, খুলনা, রংপুর বিভাগসহ সারাদেশে প্রতিটি জেলা সদরে বিএনপির স্থানীয় তৃনমূল নেতাকর্মীরা অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন বলে জানা গেছে।

এসময় তৃনমূল নেতারা বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা ও প্রতিহিংসার মামলায় পাঁচ বছরের জেল দেয়া হয়েছে। তাকে পরিত্যক্ত কারাগারে রাখা হয়েছে যা অমানবিকতার সীমা ছাড়িয়েছে। এর জন্য একদিন এ অবিচারের বিচার হবে।

নেতারা বলেন, বেগম জিয়াকে মুক্ত করার জন্য আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই। দেশে শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক আন্দোলনের মাধ্যমেই বেগম জিয়াকে মুক্ত করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন তারা।

এ ছাড়া ২০ দলীয় জোট সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পরবর্তী যে কর্মসূচি ঘোষণা করবে তা পালনে রাজপথে জোটসহ বিএনপির নেতাকর্মীরা থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বলে জানা যায়।