খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সাবেক হুইপ মশিউর রহমানের ১০ বছর সাজা

0
91

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও জাতীয় সংসদের সাবেক হুইপ মশিউর রহমানকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে্ছে যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল। বুধবার যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) নিতাই চন্দ্র সাহা এ আদেশ দেন। রায় ঘোষণার পর তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

একই সঙ্গে জ্ঞাত আয় বর্হিভূত ১০ কোটি ৫ লাখ ৬৯ হাজার ৩৩০ টাকার অবৈধ সম্পদ বাজেয়াপ্তের নির্দেশ দেয় আদালত। এছাড়া ৭০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৯ মাসের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছে। দুদকের দায়ের করা দুর্নীতি মামলায় তার বিরুদ্ধে আদালত এই রায় দিয়েছে।

এদিকে এ রায়কে অবৈধ দাবি করে ঝিনাইদহ জেলা বিএনপি বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে বেলা বেলা ১২টা পর্যন্ত জেলাব্যাপী আধাবেলা হরতাল আহ্বান করেছে। মশিউর রহমান বর্তমানে ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি। এর আগে তিনি দলের কেন্দ্রীয় কমিটির খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকও ছিলেন।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম জানান, বিএনপি নেতা মশিউর রহমানের বিরুদ্ধে দুদকের দায়ের করা মামলায় চার্জ গঠনের পর যশোর আদালতে ১৪ জনের মধ্যে ১২ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক এই রায় দেন।

তিনি আরো বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। কিন্তু আসামি পক্ষের নানা অপতৎপরতার কারণে মামলাটির বিচার কাজ দীর্ঘায়িত হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সমন্বিত যশোর জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক জাহিদুর রহমান জানান, তারা ন্যায়বিচার পেয়েছেন। মামলার রায়ে তারা সন্তুষ্ট।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ৫ কোটি ৭ লাখ ৯৮ হাজার ৯৮৩ টাকার সম্পদের হিসাব গোপন করাসহ ৫ কোটি ৯৮ লাখ ২০ হাজার ৭৩৪ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে সাবেক হুইপ মশিউর রহমানের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ১৪ ডিসেম্বর ঝিনাইদহ সদর থানায় মামলা দায়ের করেন দুদকের সমন্বিত কুষ্টিয়া জেলা অফিসের তৎকালীন সহকারী পরিচালক মোশারফ হোসেন মৃধা।

তদন্ত শেষে ২০০৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর আদালতে এ মামলার চার্জশিট জমা দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের সমন্বিত যশোর জেলা অফিসের তৎকালীন উপ-পরিচালক নাসির উদ্দিন। চার্জ গঠনের পর বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মামলাটি পাঠানো হয় যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনালে।