চাঁদে চীনের চন্দ্রযান

0
261

চন্দ্রপৃষ্ঠের ভূ-ভাগের নমুনা সংগ্রহ করতে যাওয়া চীনা মহাকাশযান চ্যাং ফাইভ উপগ্রহটিতে অবতরণ করেছে। চাঁদের নমুনা সংগ্রহে এ ধরনের অভিযান গত চার দশকের মধ্যে প্রথম। নমুনা সংগ্রহ করে চন্দ্রযানটি সফলভাবে পৃথিবীতে ফিরতে পারলে সংক্ষিপ্ত এক তালিকায় ঢুকে যাবে চীন। এ তালিকায় এত দিন ছিল কেবল যুক্তরাষ্ট্র ও সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের নাম।

বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, গত ২৪ নভেম্বর চীনের দক্ষিণাঞ্চলীয় হাইনান প্রদেশ থেকে চীনা চন্দ্রযান ‘চ্যাং ফাইভ’ একটি রকেটে চড়ে পৃথিবী থেকে যাত্রা করে চাঁদের উদ্দেশে। ১১২ ঘণ্টার মহাকাশ সফর শেষে চন্দ্রযানটি গত শনিবার পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করে। এরপর মঙ্গলবার এটি চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণ করে।

চাঁদের যে পৃষ্ঠ সব সময় পৃথিবীর দিকে মুখ করে থাকে, তাকে নিকট প্রান্ত বলে। আর বিপরীত দিকের প্রান্তটিকে বলা হয় চাঁদের দূর প্রান্ত। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে এই দূর প্রান্তে অবতরণ করে চীনের আরেকটি মহাকাশযান। চাঁদের ওই অঞ্চলে অবতরণ করা প্রথম মহাকাশযান ছিল এটি।

চীনের জাতীয় মহাকাশ প্রশাসন চায়না ন্যাশনাল স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের বরাত দিয়ে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সিনহুয়া জানিয়েছে, চন্দ্রযানটি চাঁদের বুক থেকে নুড়িপাথর ও মাটির নমুনা সংগ্রহ করবে। এসব নমুনা চাঁদের উৎপত্তি, গঠন সম্পর্কে জানতে এবং আগ্নেয়গিরির সক্রিয়তা বুঝতে বিজ্ঞানীদের সহযোগিতা করবে।

চলতি ডিসেম্বরের মাঝামাঝিতে চীনের উত্তরাঞ্চলীয় ইনার মঙ্গোলিয়া অঞ্চলে চন্দ্রযানটির পৃথিবীতে অবতরণ করার কথা রয়েছে।

বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী নেচার-এর তথ্যমতে, চীনের চন্দ্রযানটি চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে দুই কেজি নমুনা সংগ্রহ করবে। এই নমুনা সংগ্রহ করা হবে চাঁদের ওশেনাস প্রসেলারাম এলাকা থেকে। ওশেনাস প্রসেলারাম-এর অর্থ ‘ঝড়ের সমুদ্র’। আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের ফলে প্রবাহিত লাভা দিয়ে এই বিশাল সমতল এলাকা গঠিত। এই এলাকা থেকে এর আগে নমুনা সংগ্রহ করা হয়নি। চন্দ্রযানটি চাঁদের পুরো এক দিন এই নমুনা সংগ্রহের কাজ করবে। চাঁদের এক দিন পৃথিবীর ১৪ দিনের সমান।

যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড-স্মিথসোনিয়ান সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোফিজিকসের গবেষক জনাথন ম্যাকডোয়েল গত মাসেই বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, চীনের এবারের চন্দ্রাভিযানে বেশ কিছু নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার করা হয়েছে, যা এর আগের অভিযানগুলোয় দেখা যায়নি।

শুধু চন্দ্রাভিযানেই সীমিত নেই চীনের মহাকাশ গবেষণা। দেশটির সামরিক বাহিনী পরিচালিত মহাকাশ কর্মসূচি ২০২২ সালের মধ্যে মহাকাশে একটি মনুষ্যবাহী মহাকাশ স্টেশন স্থাপনের চেষ্টা করছে। এ জন্য তারা হাজার কোটি মার্কিন ডলার ব্যয় করছে। তারা চাঁদে মানুষ পাঠানোরও চেষ্টা করছে। এ ছাড়া সৌরজগতের লোহিত গ্রহ মঙ্গলেও মনুষ্যবাহী মহাকাশযান পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে চীনের।