হাসান জাকির:

হকার। তবে এরা অন্যরকম হকার। এরা ফুটপাথে পণ্য বিক্রি করে না। ব্যস্ত রাজধানীতে রাজপথে সিগনালে পরলে বা জ্যামে গাড়ি আটকা পড়লেই এরা হুমরি খেয়ে পরে। ঝুঁকি নিয়েই চলে তাদের জীবিকার যুদ্ধ। আরো জানাচ্ছেন ।

জীবন জীবিকার অবিরাম যুদ্ধে ক্লান্ত হলেও থেমে নেই বেঁচে থাকার লড়াই। রাজধানীর ব্যস্ততম রাস্তার মোড়। ট্রাফিক সিগনালে দাঁড়িয়ে থাকা গাড়ির যাত্রীর কাছে খাদ্য সামগ্রী কিংবা কোন পণ্য বিক্রি করেই চলে এদের সংসার। এদেরই একজন সুজন মিয়া।

সোমবার বিকেল সাড়ে তিনটা। রাজধানীর শাহবাগ সিগনালে অপেক্ষমান মাই টিভির আলো আধাঁরের গল্পের টিম। ক্যামেরার লেন্সে উঠে আসে সুজন মিয়ার ঝুঁকিপূর্ণভাবে জীবিকার সন্ধানে ছুঁটে চলার দৃশ্য।

পাশেই কাস্টমারের অপেক্ষায় চাতক পাখির মতো তাঁকিয়ে আরো বেশ কয়েকজন। সবারই জীবিকা নির্বাহের পথ একই।

শাহবাগ সিগনাল থেকে আমাদের যাত্রা রাজধানীর কারওয়ান বাজার সিগনাল। এখানেও অপেক্ষমান গাড়ির সিগনালে ঝুঁকি নিয়ে পণ্য বিক্রি করছে ৫ থেকে ১০ বছর বয়সী ছেলে মেয়েরা। কোন গাড়ি এসে থামলেই ঝাপিয়ে পড়ছে গাড়ির সামনে।

এদের অনেকেই আহত হয় বেপরোয়া গাড়ির ধাক্কায়। সমাজ বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এই ঝুকিঁপূর্ণ পেশায় যেকোন সময় নিভে যেতে পারে যেকারো জীবন প্রদ্বীপ। এদের পূণবার্সনে যথাযথ উদ্যোগ রয়েছে বলে জানায় সমাজ সেবা অধিদপ্তর।