টোকিওতে ছুটি কাটানোর মজা

0
95

কামরুল হাসান নাজমুল : কর্মব্যস্ত দিনগুলোর ক্লান্তি কাটাতে, ছুটির দিনগুলো উপভোগ করতে ভ্রমণ বিলাসীরা এক সপ্তাহের জন্য ছুটে যেতে পারেন জাপানের টোকিওতে। আপনার ভালোবাসার মানুষকে সফর সঙ্গী করে নিন, আপনার ভ্রমণ আনন্দে এনে দেবে এক স্বর্গীয় সুখ ও বিশ্বের যে কোনো দেশে অবস্থিত বাংলাদেশী নাগরিকরা নিয়ম অনুযায়ী নিকটস্থ জাপানি এ্যাম্বাসিতে টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন।

বাংলাদেশ থেকে জাপান যেতে ইচ্ছুক বাংলাদেশী পর্যটকরা ভিসার ব্যাপারে যোগাযোগ করতে পারেন ঢাকার বারিধারায় অবস্থিত জাপানি এ্যাম্বাসিতে । হানেদা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নাকি নারিতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর- বিমানের টিকেট করার সময় আপনার ইচ্ছা মতো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন কোন আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করবেন।

যে বিমান বন্দরেই অবতরণ করুন না কেন , সেখান থেকে বাস , ট্রেন অথবা টেক্সি যোগে সহজেই চলে যেতে পারবেন টোকিও সিটি সেন্টারে তারপর আপনার পছন্দের কোনো অভিজাত আবাসিক হোটেলে নতুবা বন্ধু কিংবা আপনজনদের বাসায়।
নতুন একটি শহরে এসে ভয় পাওয়ারই কথা , কিন্তু না, বিস্ময়কর হলেও সত্য যে ২০১৭ সালে ইকোনমিস্টের এক পরিসংখ্যান রিপোর্টে ১০০ এর মধ্যে ঠিক ৮৯.৮ নাম্বার পেয়ে জাপানের টোকিও অর্জন করেছে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ শহরের স্থান ।

এবার টোকিও শহরের যে ১০ টি গুরূত্বপূর্ণ পর্যটকদের তীর্থস্থান পরিদর্শন করে আমাদের স্মৃতির পাতায় জাপানকে স্মরণীয় করে রাখতে পারি :
১ ) কিশো কাওয়ার টোকিও ন্যাশনাল আর্ট সেন্টার
২ ) টোকিও ডিজনিল্যান্ড
৩ ) টোকিও স্কাই ট্রি
৪ ) টোকিও টাওয়ার
৫ ) মেইজি টেম্পল
৬ ) টোকিও ইম্পেরিয়াল প্যালেস
৭ ) স্কীজি ফিশ মার্কেট
৮ ) উযনো পার্ক
৯ ) শিঞ্জুকু কোয়ার্টার
১০ ) জিন্জা লাক্সারিয়াস শপিং এরিয়া ।

আনন্দময় এই সংক্ষিপ্ত জাপানের টোকিও ভ্রমণ শেষে দেশে ফিরার পূর্বে এক সেট জাপানি কিমোনো পোশাক কিনার পাশাপাশি মজার মজার জাপানি সুশি খেতে ভুলিনা যেন ।
লেখক: মাইটিভির টোকিও, জাপান প্রতিনিধি