ট্রাম্পকে নিউইয়র্ক টাইমসের হুঁশিয়ারি : সাংবাদিকদের জনগণের শত্রু বলবেন না

0
47

সাংবাদিকদের ‘জনগণের শত্রু’ হিসেবে অভিহিত না করেতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রকাশক এজি সাল্‌সবার্গার। হোয়াইট হাউজের আমন্ত্রণে ট্রাম্পের সাথে সাক্ষাতের পর রবিবার এ হুঁশিয়ারি দেন সালসবার্গার। আজ বিবিসিসহ বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক সংবাদমাধ্যম এ খবর জানিয়েছে।

ট্রাম্প সমঝোতা লঙ্ঘন করেছেন জানিয়ে সালসবার্গার বলেন, প্রেসিডেন্টের সাথে তার আলোচনার বিষয়বস্তু গোপন রাখা হবে কথা হয়েছিল। কিন্তু ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় সে সমঝোতা লঙ্ঘন করেছেন। এদিকে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প টুইটারে লিখেছেন, সালসবার্গারের সঙ্গে তার ভালো আলোচনা হয়েছে এবং গণমাধ্যমে বিপুল পরিমাণ ‘ভুয়া খবর’ প্রকাশের ব্যাপারে কথা হয়েছে। এসব ভুয়া খবর কীভাবে সাংবাদিকদেরকে ‘জনগণের শত্রুতে’ পরিণত করছে তা নিয়েও কথা হয়েছে।

ট্রাম্পের এমন টুইটের পর নিউ ইয়র্ক টাইমসের পক্ষ থেকে সালসবার্গার এক বিবৃতি প্রকাশ করে ট্রাম্পের এ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্টের গণমাধ্যমবিরোধী বক্তব্যের ব্যাপারে নিজের উদ্বেগ জানাতে ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়েছিলেন তিনি। কারণ তিনি গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে যেসব কথা বলেন তা বিশ্বের অন্য অনেক দেশের ক্ষেত্রে সঠিক। ট্রাম্পের এ ধরনের বক্তব্যকে ব্যবহার করে ওইসব দেশের সরকার সেসব দেশের গণমাধ্যমকে দমন করার সুযোগ পাচ্ছে।

এর আগেও একবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাংবাদিকদের সঙ্গে ম্যানহাটনের ট্রাম্প টাওয়ারে এক বৈঠকে সাংবাদিকদের ‘অসৎ আর মিথ্যাবাদী’ বলে উল্লেখ করছিলেন। তখন ওই বৈঠকে মার্কিন সংবাদমাধ্যমের উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবিসি নিউজের উপস্থাপক জর্জ স্টেফানোপোলাস, সিএনএন চ্যানেলের প্রধান জেফ জুকার, ডেভিড মুয়ের, এনবিসির প্রেসিডেন্ট ডেবোরা টার্নেস এবং ফক্স নিউজের চারজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা।

সম্প্রতি ট্রাম্পের এমন কথায় সালসবার্গার আরও বলেন, তিনি ট্রাম্পকে এ কথা বোঝানোর চেষ্টা করেন, ‘ভুয়া খবর’ নামের যে পরিভাষা মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারবার ব্যবহার করছেন তা ‘অবাস্তব ও ক্ষতিকর’। এছাড়া ট্রাম্প সাংবাদিকদেরকে জনগণের শত্রু হিসেবে অভিহিত করে যে বক্তব্য দিচ্ছেন তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক।