তীব্র শীতে গৌরনদীতে পানচাষী ও ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ

0
93

তীব্র শীত, ঘন কুয়াশা আর অব্যাহত শৈত্যপ্রবাহে বরিশালের গৌরনদীতে পানচাষী এবং ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। ঠান্ডাজনিত কারণে পান গাছে বিভিন্ন ধরনের রোগ দেখা দিয়েছে। এর ফলে পানের বাজারে ধস নেমেছে। কমেছে দাম।

বরিশালের গৌরনদীতে ১ হাজার ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে এবার পানের হয়েছে। উৎপাদন সুবিধায় এলাকার অধিকাংশ লোক পান চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন।

কিন্তু আকস্মিক শৈত্যপ্রবাহে পানের পাতায় হলদে দাগ দেখা দিয়েছে। পঁচে যাচ্ছে পাতা। শীতের কারণেই অবস্থা বলে জানান চান চাষীরা।

এক পোয়া বড় পানের দাম তিন হাজার থেকে নেমে আটশ’ টাকা, মধ্যম পান প্রতি পোয়া এক হাজার ছয়শ’ থেকে নেমে পাঁচশ’ এবং ছোট পান প্রতি পোয়া পাঁচশ’ থেকে নেমে তিনশ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

উপজেলার বিভিন্ন মোকামে কম দামে পান কিনেও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। পান ২৪ ঘন্টার মধ্যেই নষ্ট হয়ে যায় তাই পান কিনে বেশি সুবিধা করা যাচ্ছে না বলে জানান পান ব্যবসায়ীরা।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সিরাজুল ইসলাম বললেন, পান পরিবহন এবং বিক্রিতে দু’দিন সময় লাগে। আর এ সময়ের মধ্যেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে পান পাতা। তাতেই লোকসানের পড়তে হয় চাষী ও ব্যবসায়ীদের।

বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন এ অঞ্চলের পান ব্যবসায়ীরা, তাই দেশের বিভিন্ন বাজারে পানির দামে পান বিক্রি করছেন তারা।