দুধের ১৪টি ব্রান্ডের মধ্যে ১১টিতেই ব্যাকটেরিয়া, আতংকে মানুষ (ভিডিও)

0
306

শারমিন আজাদ : পাস্তুরিত দুধের ১৪টি ব্রান্ডের মধ্যে ১১টিতেই ই কোলাই এবং কলিফর্ম ব্যাকটেরিয়ার অস্তিত্ব থাকার প্রমাণ মেলায় আতংকে সাধারণ মানুষ। কিন্তু দুধ প্রক্রিয়াজতকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, দুধে ব্যাকটেরিয়ার জন্য খামারী দায়ী। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, খামার থেকে বিশুদ্ধ দুধ সংগ্রহ করার দায়ভার বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানেরই।

পাস্তুরিত দুধে ক্ষতিকর বস্তু নিয়ে তৈরি প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ এগ্রিকালচারাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট, বিসিএসআইআর, পারমাণু শক্তি কমিশন ও আইসিডিডিআরবির ল্যাবে পাস্তুরিত দুধ, খোলা দুধ ও গোখাদ্য পরীক্ষা করেছে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

সেই পরীক্ষায় বিএসটিআইয়ের অনুমোদিত যেসব কোম্পানির দুধে ক্ষতিকর পদার্থ পাওয়া গেছে সেগুলো হলো-প্রাণ মিল্ক, মিল্কভিটা, ডেইরি ফ্রেশ, ইগলু, ফার্ম ফ্রেশ, আফতাব মিল্ক, আল্ট্রা মিল্ক, আড়ং ডেইরি, আইরান, পিউরা, সেইফ মিল্ক।

গবেষণায় আরো বলা হয়েছে, সবগুলো হিমাগার থেকে সংগৃহীত নমুনাতেই ই-কোলাই পাওয়া যায়। কিন্তু দেখা যায়, ৬৭ শতাংশ নমুনা ই-কোলাই-এর উচ্চমাত্রায় দূষিত। দুধ উৎপাদনকারী থেকে শুরু করে হিমাগার ও সব শেষে ভোক্তা অর্থাৎ স্থানীয় রেস্তোরাঁ পর্যন্ত দুধে ক্ষতিকারক এসব ব্যাকটেরিয়ার মাত্রা ক্রমশ বাড়ে।

দুগ্ধ শিল্পের বিভিন্ন পর্যায়ে দুধের অণুজীববিজ্ঞানগত মান যাচাইয়ের জন্য উত্তরাঞ্চলের দুধ উৎপাদনকারী, হিমাগার ও স্থানীয় রেস্তোরাঁ থেকে কাঁচা দুধের ৪৩৮টি এবং ঢাকা ও বগুড়ার বিভিন্ন দোকান থেকে বাণিজ্যিকভাবে প্রক্রিয়াজাত করা দুধের ৯৫টি নমুনা সংগ্রহ করে এই গবেষণা চালানো হয়।
পিটিসি