দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ লাখ, মৃত্যু ছাড়ালো ২৫০০

0
817

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ হাজার ৩৪ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। একই সময় মারা গেছেন ৫১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৭৬২ জন।

এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৯৯ হাজার ৩৫৭ জন করোনায় সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হলেন। আর মোট মারা গেছেন ২ হাজার ৫৪৭ জন এবং মোট সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৮ হাজার ৭২৫ জন।

শুক্রবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

শুক্রবারের বুলেটিনে বলা হয়, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষার তুলনায় রোগী শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৮০শতাংশ। আর রোগী শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৫৪ দশমিক ৫৪ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৮ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৫১ জনের মধ্যে ৪০ জন পুরুষ, ১১ জন নারী। এ পর্যন্ত এক হাজার ২ হাজার ১১ জন পুরুষ এবং ৫৩৬ জন নারী মৃত্যুবরণ করেছেন। এদের মধ্যে হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে ৪২ জনের এবং বাসায় মৃত্যু হয়েছে ৯ জনের।

বিভাগের মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগে ১৬ জন, ঢাকা বিভাগে ১৩ জন, খুলনা বিভাগে ও বরিশাল বিভাগে ৬ জন করে, রাজশাহী বিভাগে ও সিলেট বিভাগে ৩ জন করে এবং রংপুর বিভাগে ৪ জন মৃত্যুবরণ করেন।

বিভাগ অনুযায়ী এ পর্যন্ত বিভাগ ভিত্তিক মৃত্যু ঢাকায় ১২৫৫ জন, যা ৪৯.২৮ শতাংশ; চট্টগ্রামে ৬৫৫ জন, যা ২৫.৭২ শতাংশ; রাজশাহীতে ১৩১ জন, যা ৫.১৪ শতাংশ; খুলনায় ১৫০ জন, যা ৫.৮৯ শতাংশ; বরিশালে ৯৭ জন, যা ৩.৮১ শতাংশ; সিলেটে ১১৬ জন, যা ৪.৫৫ শতাংশ, রংপুরে ৮৭ জন, যা ৩.৪২ শতাংশ এবং ময়মনসিংহে ৫৬ জন, যা ২.২০ শতাংশ। 

মারা যাওয়া ব্যক্তিদের বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২১-৩০ বছরের মধ্যে রয়েছেন ১ জন, ৩১-৪০ বছরের ৩ জন, ৪১-৫০ বছর ৭ জন, ৫১-৬০ বছরের মধ্যে আছেন ১৫ জন, ৬১-৭০ বছরের মধ্যে ১২ জন, ৭১-৮০ বছরের মধ্যে আছেন ১১ জন এবং ৮১-৯০ বছরের মধ্যে আছেন ২ জন। 

বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৮০টি ল্যাবে পরীক্ষা করা হয় ১৩ হাজার ৪০৭টি। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১০ লাখ ৬ হাজার ৭৫১টি।

বুলেটিনে আরো জানানো হয়, ঢাকা মহানরগীতে সাধারণ শয্যায় ভর্তি আছেন ১৯৬৯ জন, ঢাকা মহানগরীতে আইসিইউতে ভর্তি আছেন ১০৭ জন, চট্টগ্রাম মহানগরীতে সাধারণ শয্যায় ভর্তি আছেন ৩১০ জন, চট্টগ্রাম মহানগরীর আইসিইউতে রোগী ভর্তি আছেন ১৯ জন, সারা দেশের অন্যান্য হাসপাতালে সাধারণ শয্যায় ভর্তি আছেন ১৮০০ জন, সারা দেশের অন্যান্য হাসপাতালে আইসিইউ শয্যায় ভর্তি আছেন ৮৪ জন। সারা দেশের সাধারণ শয্যা আছে ১৪৭১৫টি, রোগী ভর্তি আছেন ৪০৭৯ জন এবং খালি আছে ১০৬৩৬টি শয্যা। আইসিইউ শয্যা সারা দেশে আছে ৩৩৬টি, রোগী ভর্তি আছেন ২১০ জন এবং শয্যা খালি আছে ১৬৬টি। 

করোনার ঝুঁকি এড়াতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপর জোর দিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

আপনার সুস্থতা আপনার হাতে উল্লেখ করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে সকলের প্রতি আহবান জানান ডা. নাসিমা সুলতানা।