সাইদুর রহমান আবির :

প্রসূতির সিজার করতে গিয়ে নবজাতক দু টুকরা, মাথা কেটে যাওয়ায় মৃত্যু, নবজাতক চুরি হয়ে যাওয়া, যমজ বাচ্চার একটি পেটে রেখেই সেলাই, দীর্ঘদিনের এই খবর যেন থামছেই না। প্রতিনিয়তই দেশের কোন না কোন এলাকা থেকে নবজাতক নিয়ে দূর্ঘটনার খবর পাওয়া যাচ্ছে। অসতর্কতা, নিরাপত্তার অভাব এবং কিছু কিছু অদক্ষতার কারণেই এসব ঘটছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

কুমিল্লার হাসিনা বেগম। নারীর পরিপূর্ণতা আসে মা হলে, কিন্তু চিকিৎসকের ভুলে নিজের পেটে থেকেই চিরবিদায় নিল নিজেরই নবজাতক সন্তান। বরগুনার বামনায় ক্লিনিকে ডাক্তার না আসায় ম্যানেজার নিজেই ডাক্তার সেজে প্রসূতির সিজার করতে গিয়ে মারা যায় হয় মা ও নবজাতক উভয়েই।

সবার জানা আছে সিজার করতে গিয়ে কুমিল্লায় নবজাতক দু টুকরো করে ফেলার ঘটনা। আর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নবজাতক চুরি হবার ঘটনা ঘটছে প্রায়ই।

টেলিভিশন এবং পত্রিকা খুললেই পাওয়া যাচ্ছে এসব হৃদয়স্পর্ষী খবর।

আর প্রায়শই এসব খবরে উদ্বিগ্ন চিকিৎসকরা। বিষয়টি নিয়ে কথা হয় বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের সভাপতি এবং রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালকের সাথে। এসব ঘটনার নেপথ্যে অনুমোদনহীন হাসপাতাল ক্লিনিক অনেকটা দায়ী, তাই এগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে দেশের চিকিৎসাক্ষেত্রের বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে দ্রুত বৈঠক করে নতুন সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান বিএমএর সভাপতি