নিজ দেশে বিয়ে না করায় বিরুষ্কার দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন

0
118

অসংখ্য দেশবাসী  ভারতের ক্রিকেট অধিনায়ক বিরাট কোহলির কাজে প্রেরণা পান। এবার তার বিরুদ্ধেই এবার দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনলেন মধ্যপ্রদেশের বিজেপি বিধায়ক পান্নালাল শাক্য।

ইটালিতে বিয়ে করেই বিরাট প্রমাণ করে দিয়েছেন যে তিনি দেশভক্ত হতে পারেন না। নেতার মতে, ভগবান রাম তো দেশের মাটিতেই বিয়ে করেছেন। স্বয়ং কৃষ্ণেরও বিয়ে হয়েছে এ ভারতভূমিতে। তাহলে বিরাট কেন দেশের বাইরে বিয়ে করেছেন প্রশ্ন রাখেন ভারতের ক্ষমতাসীনে দলের এই নেতা।

হানিমুনে বিরুষ্কা

যিনি এরকম কাজ করতে পারেন, তিনি আর যাই হোক দেশভক্ত হতে পারেন না। অন্তত এই নেতার মত সেরকমটাই। নিজের মন্তব্যের ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তিনি। তাঁর দাবি, বিরাট এ দেশের ছেলে। এ দেশের হয়ে খেলেই তিনি অর্থ উপার্জন করেছেন। নাম-ধাম, সম্মান-খ্যাতি সব এ দেশের দৌলতেই।

অথচ বিয়ের সময় তিনি দেশের কথা ভুলে গেলেন। এরকম ব্যক্তি দেশের সামনে অনুপ্রেরণার উদাহরণ হতে পারেন না বলেই মত এ নেতার। একই অভিযোগ অানুশকা শর্মার বিরুদ্ধেও। তিনিও দেশপ্রেমের পরিচয় দেননি বলেই সাফ কথা বিজেপি নেতার।

ভারতের ক্রিকেট অধিনায়ক বিরাট কোহলির দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তুলে উলটো নিজেই নিজের দলে প্রশ্নের মুখে পড়ে গেলেন। মধ্যপ্রদেশের বিজেপি বিধায়ক পান্নালাল শাক্যর মন্তব্য সামনে আসার পর পুরো দেশে হইচই। এবার তা নিয়েই ক্ষোভ উগরে দিলেন আর এক বিজেপি নেতা এস প্রকাশ।

বিজেপি নেতার এহেন মন্তব্যে শোরগোল পড়ে গোটা দেশে। যাঁর উপর ভারতের ক্রিকেট দলের ভার, তাঁর দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলা চাট্টিখানি কথা নয়। অভিযোগ গুরুতর। তবে তার সারবত্তা নেই। স্বাভাবিকভাবেই বিরাট-অানুশকা এর কোনও জবাবও দেননি।

তবে প্রতিক্রিয়া এসেছে দলের অভ্যন্তরেই। বিজেপি নেতা এস প্রকাশ পান্নালালের মন্তব্য খারিজ করে জানিয়েছেন, বিরাটের দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন তোলর কোনও মানে হয় না। তাঁদের যেখানে খুশি সেখানে বিয়ে করেছেন তাঁরা। এবং তাঁরা তা করতেই পারেন। এরকম অর্থহীন প্রশ্ন তুলে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করার কোনও অধিকার ওই বিধায়কের নেই।

এই রিসোর্টে বিয়ে করেছেন বিরুস্কা

দলের একাধিক নেতার তোপের মুখে পড়েন পান্নালাল। সাধারণত কোনও ইস্যুতে বিজেপি নেতারা কারও বিরুদ্ধে তোপ দাগলে, বাকি নেতারাও কমবেশি তাঁর পাশে এসে দাঁড়ান। তবে এখানে জড়িয়ে বিরাট কোহলির নাম। সঙ্গে ক্রিকেট। তাই আবেগের মাত্রাও অন্যরকম। ফলে টুঁ শব্দ নেই বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্বের মুখে।

 

অন্যদিকে কংগ্রেসের অভিযোগ, গুজরাট নির্বাচনের ফলাফলে বিজেপির আত্মবিশ্বাসের ভিত টলে গিয়েছে। উন্নয়নের মডেল দিয়ে আর বাজিমাত করা যাচ্ছে না। তাই দেশপ্রেমের জিগির তোলার চেষ্টা। গুজরাট নির্বাচনের সময় এ কাজ করেছে পদ্মাবতী ইস্যু। এখন কোনও কিছু না পেয়ে খামোখা বিরাটকে টার্গেট করা হচ্ছে।

এদিকে ২১ ডিসেম্বর বিরুষ্কার রিসেপশন। রোমে হানিমুন সেরে ইতিমধ্যেই দিল্লি এসে পৌঁছেছেন তাঁরা। ক্রীড়া ও বিনোদন দুনিয়ার নক্ষত্রের হাজির থাকার কথা এই হাই প্রোফাইল রিসেপশনে। বিয়ের সাজে, আভিজাত্যে নেটিজেনদের চমকে দিয়েছিলেন বিরাট-অানুশকা। এবার রিসেপশনে কী চমক থাকে তারই অপেক্ষায় ফ্যানরা।