পোষাক শিল্পে উৎপাদন বাড়াচ্ছে গাজীপুরের প্রতিবন্ধী শ্রমিকরা

0
52

এম.এস. রুকন: 

তৈরি পোষাক শিল্পে উৎপাদন বাড়াচ্ছে গাজীপুরে বিভিন্ন মিল-কারখানায় কর্মরত প্রতিবন্ধী শ্রমিকরা। সুস্থ্য, সবল, স্বাভাবিক শ্রমিকের তুলানায় একজন প্রতিবন্ধী শ্রমিকের উৎপাদনের পরিমাণ অনেকাংশে বেশি।

প্রতিবন্ধীদের উৎপাদনের গতিশীলতা দেখে অনেক গার্মেন্টস কারখানার মালিকরাও সন্তুষ্ট এবং তাদের প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে নানা প্রকার সাহায্য-সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। প্রতিবন্ধী শ্রমিকরাও এ অঞ্চলের মালিকদের আন্তরিকতা দেখে তাদেরকে বন্ধুর মতো আপন করে নিয়েছেন।

গাজীপুর শিল্পাঞ্চলের বিভিন্ন কারখানার মানব সম্পদ উন্নয়ন বিভাগের সূত্রে জানা যায়,  গাজীপুরের ব্যাক্সিমকো গ্রপের বস্ত্র ও পোশাক কারখানায় কাজ করেন কয়েক হাজার শ্রমিক, তার মধ্যে ৪ শতাধিক শ্রমিক প্রতিবন্ধী।

এছাড়া গাজীপুর সদরের কাশেমপুর জরুন এলাকায় অবস্থিত কেয়া গার্মেন্টস লিঃ এ কাজ করে শত শত শ্রমিক, তার মধ্যে শতাধিক প্রতিবন্ধী শ্রমিক কাজ করছেন।

গাজীপুরের গাছা এলাকায় অবস্থিত বঙ্গবন্ধু কলেজের পাশে টিআরজেট গ্রুপ, এমটানেট গ্রুপ, বিসিক (টঙ্গী) নর্দাণ কর্পোরেশন, গাজীপুরা এলাকায় এলউসাইন গ্রুপ, বড় বাড়ি ইন্টারফ্যাট, আয়েশা লিঃ, বেস্ট গার্মেন্টস লিঃ চান্দনা চৌরাস্তায় পশমী সোয়েটার সহ বেশ কিছু কারখানায় প্রতিবন্ধী শ্রমিকরা কাজ করছেন।

পলমল গ্রুপের প্রতিবন্ধী শ্রমিক নাঈম হাসান (২০) জানান, আমি কি করে বলবো কত কষ্ট করে চাকরি নিয়াছি, প্রথমে  আমাকে চাকরিতে নিতে চায়নি। তবে যখন আমার কাজ দেখাই তখন নিতে রাজি হয়। এখন কেউ আমার সঙ্গে কাজ করে পারে না। দুই বছর ধরে এই কারখানায় কাজ করছি।

টিআরজেট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হারুন অর রশিদ জানান, প্রতিবন্ধীরা যাতে স্বাচ্ছন্দে চলাফেরা করতে পারে সেই জন্য কারখানা নির্মাণের শুরুতেই আলাদা ব্যবস্থা রেখে দিয়েছি। তিনি বলেন, বর্তমানে তার কারখানায় ২০ জনের অধিক প্রতিবন্ধী শ্রমিক কাজ করছে।

এনন টেক্স কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ইউনুস বাদন জানান, প্রতিবন্ধীদের চাকুরী দেওয়ার পাশাপাশি নাম মাত্র মূল্যে খাবার পরিবেশন করছি এবং বিনা মূল্যে বাসস্থানের ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।

তিনি বলেন, বিনা মূল্যে কোন কোন ক্ষেত্রে আর্থিকভাবে নগদ সহায়তাও প্রদান করছি। প্রতিবন্ধীদের বুঝা মনে না করে তাদের সম্পদ ভাবলে দেশের অর্থনৈতিক গতি বাড়বে। প্রতিবন্ধীরা উৎপাদনে ভাল করে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করে এমন বিভিন্ন সংস্থার তথ্যে জানা যায়, দেশের মোট জনগোষ্ঠীর মোট ১০ শতাংশ শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী, এই হিসেবে বাংলাদেশের ১ কোটি ৬০ লাখ বিকলাঙ্গ প্রতিবন্ধী রয়েছে তাদের মধ্যে ৪০ শতাংশ তরুণ যুব সম্প্রদায়। এর মধ্যে কয়েক হাজার পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরাও রয়েছে।