বক্স অফিসে হিট এই ছবিগুলোর অফার ছেড়ে দিয়েছিলেন শাহিদ কাপূর

0
575

সেই কবে ‘ইশ্ক ভিস্‌ক’ ছবিটি দিয়ে তাঁর বলিউড যাত্রার শুরু। আজও তিনি তাঁর চকোলেট বয় ইমেজটা ধরে রেখেছেন। তবে কেরিয়ারের মাঝপথে সিনেমার চয়নে যে ভুল হয়েছিল সে কথা নিজেও স্বীকার করেছিলেন শাহিদ কাপূর।

‘জব উই মেট’ আর ‘কামিনে’ ছবি দুটির সাফল্যের পর বেশ কয়েকটি সিনেমা ফিরিয়ে দিয়েছিলেন শাহিদ। অথচ বক্সঅফিসে চূড়ান্ত সফল হয়েছিল সেই ছবিগুলো।

রকস্টার:

ইমতিয়াজ আলি আর শাহিদ কাপূরের জুটিই বলিউডকে উপহার দিয়েছে সুপারহিট ছবি ‘জব উই মেট’। আসলে ইমতিয়াজ, শাহিদের কাছে ‘রকস্টার’ আর ‘জব উই মেট’ এই ছবি দুটির কথা বলেছিলেন।

আর এই দু’টি ছবির মধ্যে যে কোনও একটিকে বাছতে বলেছিলেন ইমতিয়াজ। শাহিদ ‘জব উই মেট’ ছবিটি বেছে নিলে, ‘রকস্টার’ ছবিটি চলে যায় রণবীর কপূরের কোর্টে।

রং দে বসন্তী:

‘রং দে বসন্তী’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য সর্বপ্রথম ডাক পেয়েছিলেন শাহিদ।

তবে তিনি না করে দিয়েছিলেন। আর তারপর রীতিমতো হাত কামড়াতে হয়েছিল শাহিদ কাপূরকে।

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে সে কথা স্বীকারও করে নিয়েছিলেন শাহিদ। শোনা গিয়েছিল, ছবিতে সিদ্ধার্থের ভূমিকাতে দেখা যেত শাহিদকে।

রাঞ্ঝনা:

এই ছবির জন্যও পরিচালক আনন্দ এল রাইয়ের প্রথম পছন্দ ছিলেন শাহিদ।

তবে সেই সময়ে রোম্যান্টিক জঁরের ছবিতে অভিনয় করতে চাইছিলেন না শাহিদ কাপূর।

কারণ শাহিদ অভিনীত ‘তেরি মেরি কাহানি’ আর ‘মৌসম’ বক্সঅফিসে একেবারে মুখ থুবড়ে পড়েছিল। এর পর আর কোনও রোমান্টিক ছবির সঙ্গে যুক্ত হতে চাইছিলেন না শাহিদ। আর ‘রাঞ্ঝনা’ চলে যায় ধনুষের কাছে।

রাজনীতি:

বড় নামের কাছে তিনি আড়াল হয়ে যাবেন বলে রাজনীতি ফিরিয়ে দিয়েছিলেন শাহিদ কাপূর। আর তখনই ক্যাচটি লুফে নেন রণবীর কাপূর। প্রকাশ ঝাঁ পরিচালিত ‘রাজনীতি’ বক্স অফিসে ব্যাপক সফল হয়েছিল।

শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স:

এই ছবিতে শাহিদেরই অভিনয় করার কথা ছিল।

কিন্তু ছবিটির শুটিং শুরু হতে অনেকটাই দেরি হয়ে যায়।

এদিকে অন্য আরেকটি ছবির জন্য কথা দিয়ে রেখেছিলেন শাহিদ। শেষ পর্যন্ত সুশান্ত সিংহ রাজপুত অভিনয় করেন এই ছবিতে।

ওয়ান্স আপন আ টাইম ইন মুম্বই দোবারা:

এই ছবিতে ইমরান খানের করা চরিত্রে অভিনয় করার কথা ছিল শাহিদ কপূরের।

কিন্তু এই ছবিটিও না করে দিয়েছিলেন শাহিদ।

তবে বক্স অফিসে বিরাট সফল হয়েছিল এই ছবি।

 

দ্য রিলাকট্যান্ট ফানডামেন্টালিস্ট:

এই ছবিটির জন্য পরিচালক মীরা নায়ারের একমাত্র পছন্দ ছিলেন শাহিদ কপূর। কিন্তু সে সময়ে মৌসম ছবিটির প্রস্তুতির জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন শাহিদ।