বল বিকৃতির চরম সাজা পেলেন ওয়ার্নার, টেনশনে স্ত্রীর গর্ভপাত

0
79

ক্রিকেটের এখন কলঙ্কিত নায়ক তিনি। বল বিকৃতি কাণ্ডে কেরিয়ারের সবচেয়ে চরম আঘাত পেয়েছেন। জাতীয় দলের ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত। আইপিএলও ঠাঁই হয়নি।

তবে ক্রিকেট কেরিয়ার নয়, সবচেয়ে বড় আঘাত নেমে এসেছিল ওয়ার্নারের ব্যক্তিগত জীবনে। বল বিকৃতি কাণ্ড ঘটার পরেই ওয়ার্নারের স্ত্রী ক্যান্ডিসের অঘটন ঘটে।

অভিশপ্ত দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে শেষ টেস্টের আগেই বল কেলেঙ্কারি ঘটে। নিজেদের অপরাধ স্বীকারও করে নিয়েছিলেন অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। এরপরেই বিশ্বজুড়ে চরম নিন্দিত হন অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা।

ব্যারাকিংয়ের সামনে শেষ পর্যন্ত ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ এবং ক্যামেরন ব্যনক্রফ্টকে দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। তাদের কাণ্ডে বিশ্বের সব ক্রিকেট প্রেমীরা অবাক হয়।

দেশে ফিরে সাংবাদিক সম্মেলনে কেঁদেছিলেন ওয়ার্নার। সিডনির ওই সাংবাদ সম্মেলনের এক সপ্তাহ পরে তাঁর গর্ভপাত হয় বলে জানিয়েছেন ওয়ার্নার-পত্নী ক্যান্ডিস। সেই সময়ের দুঃসহ অভিজ্ঞতার কথা জানান ওয়ার্নার স্ত্রী।

আন্তর্জাতিক এক ম্যাগাজিনে ক্যান্ডিস জানিয়েছেন, ‘‘এক রাত্রে বাথরুমে ডেভিডকে ডাকলাম। প্রচণ্ড রক্তপাত হচ্ছিল। এরপরে একে অন্যকে জড়িয়ে কেঁদেছিলাম। ভয়ঙ্কর এক সফরের শেষটা মর্মান্তিক হয়েছিল।’’

যন্ত্রণাকাতর গলায় ক্যান্ডিস বলেছেন, ‘‘বল বিকৃতি কাণ্ডে জনসমক্ষে হেয় হওয়া আমাদের জীবনে বড়সড় প্রভাব ফেলেছিল।’’

এরপর থেকেই তাঁরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, ‘‘এরপর থেকে আরও কোনওকিছুরই প্রভাব নিজেদের জীবনে পড়তে দেবেন না। আমরা কখনও আগে উপলব্ধি করিনি এই সন্তানকে আমরা কতটা চেয়েছিলাম।’’

কিন্তু কেন গর্ভপাত করাতে হল? জানা যায়, বলবিকৃতি কেলেঙ্কারির পরবর্তী পর্বের চাপ ও বিমানযাত্রার ধকলকেই গর্ভের সন্তান নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণ বলে জানিয়েছেন ক্যানডিস। ওয়ার্নার ও ক্যান্ডিসের ইতিমধ্যেই দুই সন্তান রয়েছে— আইভি মে (৩) ও ইন্ডি রে (২)।