বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উন্নিত হওয়া জনগণের অর্জন : প্রধানমন্ত্রী

0
60

দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার যে ধারাবাহিকতা শুরু হয়েছে তা ধরে রাখতে দেশবাসীর সহযোগীতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, নিজের জন্য নয়, দেশের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করছে বর্তমান সরকার। স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশের যোগ্যতা অর্জন করায় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান শিক্ষাবিদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ।

স্বাধীনতার পর ১৯৭৫সালে স্বল্পোন্নত দেশের কাতারে নাম উঠে বাংলাদেশের। দীর্ঘ চড়াই উৎরাই পেরিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে ২০০৮সালে আবারও সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ।

উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় নাম লেখাতে দীর্ঘদিন জাতিসংঘের বেধে দেয়া ৩টি শর্ত পূরনের পথে চলছে বাংলাদেশ। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি ৭.২-৮ অর্জনের পাশাপাশি মাথাপিছু আয় বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৬১০ মার্কিন ডলার।

২০১৫ সালে নিম্ন আয়ের দেশ হিসেবে বিশ্ব ব্যাংকের কাছ থেকে স্বীকৃতি লাভের মাত্র ৩ বছরের মাথায় উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেল বাংলাদেশ। এ উপলক্ষে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতেই সুপারিশপত্রটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেন অর্থমন্ত্রী।

এসময় স্মারক ডাকটিকেট ও ৭০ টাকার স্মারক নোটের মোড়ক উন্মোচন করেন সরকার প্রধান। এই অর্জনের সম্মাননা স্বরুপ রাষ্ট্রপতির পক্ষথেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রীকে।

জাতিসংঘের মহাসচিব, বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকাপ্রধানসহ উন্নয়ন সহযোগীরা শুভেচ্ছা বার্তা পাঠান প্রধানমন্ত্রীর জন্য। সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে দেশের এগিয়ে যাওযার চিত্র তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

উন্নয়নের এই গতিধারা ধরে রাখতে সরকারের ধারাহিতার প্রয়োজনীয়তার কথা জানান তিনি। পরে দেশের উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে নির্মিত গিতি নাট্য উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।