বিএনপি নির্বাচনে না এলে গণতন্ত্র ব্যাহত হবে না : ওবায়দুল কাদের

0
72

বিএনপি নির্বাচনে না এলে গণতন্ত্রের যাত্রা ব্যাহত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার রাজধানীর রামকৃষ্ণ মঠে প্রস্তাবিত বিবেকানন্দ ভবন এর নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন সংবিধান অনুসারেই একাদশ সংসদ নির্বাচন হবে।“এর বাইরে অন্য কোনো দুঃস্বপ্ন দেখে কোনো লাভ নেই, এটাই শেষ কথা,” বলেছেন তিনি। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে। শেখ হাসিনা সরকার শুধু ‘রুটিন ওয়ার্ক’ করবে। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সব কাজ করবে নির্বাচন কমিশন।

বিএনপি ভোটে না এলে তা নিয়ে কোনো ভাবনা নেই। “বিএনপি নির্বাচনে না এলে সে জন্য গণতন্ত্রের চলার পথে কোনো বাধা হবে না। পার্লামেন্টও চলবে, সরকারও থাকবে, তারা না এলে গণতন্ত্রের কী দোষ?

তিনি বলেন, “ভারতেরসহ কোনো গণতান্ত্রিক দেশে কোনো দল নির্বাচনে আসলো কি আসলো না, এ দায় নেওয়ার কি কোনো সুযোগ আছে? এই দায় আওয়ামী লীগেরও নেই। আসলে আসুক, না আসলে না আসুক, তাতে কী আসে যায়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা। এ সময় ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রতিবেশী দেশটির সঙ্গে সরকারের সম্পর্ক নষ্ট করতে এসব হামলায় ইন্ধন দেওয়া হচ্ছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে গত বছর হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর হামলার প্রসঙ্গ ধরে তিনি বলেন, সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন চালিয়ে যারা ভারতের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক নষ্ট করতে চায়, তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে।  আমাদের সম্পর্ক এখন অনেক উপরে। আমাদের পারস্পরিক কন্সট্রাকটিভ সম্পর্ক নতুন নতুন মাত্রা পাচ্ছে।

মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, “নাসিরনগরে দেখুন, বিচার শুরু হতে যাচ্ছে। সরকার কঠোর অবস্থানে আছে। এখানে যদি আওয়ামী লীগের লোকও থাকে, তাদেরও পার পেয়ে যাওয়ার কোনো উপায় নেই।” কাদের বলেন, একটি ‘সিন্ডিকেট’ হিন্দুদের সম্পত্তি দখলের উদ্দেশ্যে এসব হামলা চালাচ্ছে।

“ঠাকুরগাঁওয়ে যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, আমি নিজে গিয়ে দেখে এসেছি গরিব হিন্দু পরিবার, তাদের উপর হামলা চালানো হয়েছে। এরা (হামলাকারী) যে দলেরই হোক না কেন, আমরা কোনো অবস্থায় ছেড়ে দেব না।”

হামলাকারীদের চিনে রাখতে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের পরামর্শ দিয়ে মন্ত্রী কাদের বলেন, “যারা আজকে মুখোশ ধারণ করে আপনাদের আপন হতে চায়, তাদেরকে চিনে রাখুন। সামনে নির্বাচন, গোলমাল হলে তারাই পাকাবে, ২০০১ সালে সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমণ করে তারা দেখিয়ে দিয়েছে।”

বিপরীতে আওয়ামী লীগের প্রতি আস্থা রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, “আমাদের ভুল থাকতে পারে, সে ভুল সংশোধনের সাহসও আমাদের আছে।”

 

 

 

 

 

 

শ্রিংলা বলেন, “ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্কে এখন সোনালী অধ্যায় চলছে।

“বন্ধুগণ আপনাদের উন্নয়নের জন্য ভারত প্রস্তুত। আপনাদের সোনার বাংলার স্বপ্ন আমাদেরও স্বপ্ন।”

বিএনপি ছাড়াও ‘চলবে’

বিএনপির দাবি প্রত্যাখ্যান করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন,