বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হলো পিলখানা ট্রাজেডিতে শহীদদের

0
55

পিলখানা ট্যাজেডির ৯ বছর পূর্তি আজ। ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন বিডিআর সদর দফতরে ওই ঘটনায় ৫৭ জন সেনা সদস্যসহ ৭৪ জন নিহত হন। বিনম্র শ্রদ্ধায় নিহতদের স্মরণ করলেন স্বজনরা।

সকালে বনানী কবরস্থানে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। এসময় রাষ্ট্রপতির পক্ষে তার উপ-সামরিক সচিব ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার সামরিক সচিব ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল শ্রদ্ধা জানান ফুল দিয়ে।

পরে বিজিবি মহাপরিচালক জানান, হত্যাকান্ডের রায়ে তারা আশাবাদী। তবে স্বজনেরা ২৫ ফেব্রয়ারিকে শহীদ দিবস হিসাবে ঘোষণা করার দাবি জানান।

যে শিশুটি মায়ের গর্ভে থাকতেই পিলখানা ট্র্যাজেডিতে হারিয়েছে তার বাবাকে, তার বয়স এখন ৯ বছর। বাবা-হারানো এই সন্তানেরা জানেন, তাদের পিতা ছিলেন বীর সৈনিক। দেশের জন্য লড়তে প্রস্তুত ছিলেন তাদের বাবা। তাই শোকের ছায়ায়ও তাদের চোখে গর্বের ঝিলিক রাখে অক্ষুন্ন।

বাবা হারানো সন্তান যতটা পাথর বুকে চাপা দিয়ে আছে, ততটা কঠিন হতে পারছেন না ছেলে হারানো মা। ছেলে হারানো বাবারও তাই আকুতি, আরেকটু বেশি শ্রদ্ধার।

স্বজনদের এমন শোক সেনানিবাস কবর স্থানে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন। শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা। পিলখানা ট্র্যাজেডি মামলার গতি প্রকৃতি নিয়ে কথা বললেন বিজিবি মহাপরিচালক।

স্বজনেরা সন্তোষ জানিয়েছেন সরকারের সহযোগিতায়। এ সময় নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে মোনাজাত করা হয়। এই মামলায় বিচারের রায় দ্রুত কার্যকর হবে বলে আশা প্রকাশ করেন নিহতদের স্বজনরা।