বিমান বাহিনীর আক্রমণে বিজয়ের ঘন্টাধ্বনি বেজেছিল ৩ ডিসেম্বর

0
50

ডিসেম্বরেই বিজয়ের গর্জনে জেগে ওঠে বাংলার আকাশ-বাতাস। জয়ের ধ্বনিতে শিহরিত লাখো বাঙালির প্রাণ উচ্ছসিত তখন। বিমান বাহিনীর আক্রমণে বিজয়ের ঘন্টাধ্বনি বেজেছিল ৩ ডিসেম্বর।

মুক্তিযোদ্ধাদের রণাঙ্গনের উল্লাস তখন ছড়িয়ে গিয়েছিল মুক্তিকামী সাধারণ মানুষের মনে প্রাণে। তখনকার প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদের ভারতের সাথে যৌথ সেনা গঠনের কৌশলী পদক্ষেপের প্রশংসা করেন ইতিহাসবিদরা।

ডিসেম্বরে ভারতে আঘাত হানে পাকিস্তান। তখনই ভারতীয় মিত্রবাহিনী পাঠানোর আহ্বান জানানো হয়। তৎকালীন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ, তীক্ষ পরিকল্পনায়, যৌথ বাহিনী গঠনের চুক্তি সম্পাদন করেন। চারদিকে বেজে ওঠে মিত্র বাহিনীর যুদ্ধের দামামা। দেশের মুক্তিসেনারা আরো বেগবান হয়ে ওঠেন জয়ের নেশায়।

ইতিহাসবিদরা বলেন, পাকিস্তানি রাজনীতিকরাও ভয় পেতেন বঙ্গবন্ধুর পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা মিতভাষী তাজউদ্দিনের স্থিতধীকে।

ডিসেম্বরে আকাশ যুদ্ধে একের পর এক জয়, আশা জাগিয়ে তুলেছিল সাধারণের মাঝে। একাত্তরের ইতিহাসের সঠিক মূল্যায়নের প্রয়োজন বলে মনে করছেন ইতিহাসবিদরা।এই যুদ্ধে মিত্রবাহিনীর ভূমিকা, বাংলাদেশের মুক্তিসেনার অদম্য যুদ্ধবাজ গতিপ্রকৃতি ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি দিকনির্দেশনা তরুণ প্রজন্মের সামনে তুলে ধরা উচিৎ বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।