বিয়ের কিছু দিনের মধ্যেই বিচ্ছেদ ঘটেছে বলিউডের যে তারকাদের

0
88

মুকেশ অগ্রবাল-রেখা (১২ মাস):

১৯৯০ সালে দিল্লির ব্যবসায়ী মুকেশ অগ্রবালের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল বলি ডিভা রেখার।

বিয়ের এক বছরের মধ্যেই মানসিক অবসাদের শিকার হয়েছিলেন মুকেশ। ১৯৯১ সালে তিনি আত্মহত্যা করেন।

 

 

 

কিশোর কুমার-যোগিতা বালি (২৪ মাস):

বহুবার সম্পর্কে জড়িয়েছেন কিশোর কুমার। ১৯৭৬ সালে যোগিতা বালির সঙ্গে কিশোর কুমারের তৃতীয় বার বিয়ে হয়। কিন্তু, বিয়ের দু’বছরের মাথায় তাঁদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়।

 

 

 

করন সিং গ্রোভার-শ্রদ্ধা নিগম (১০ মাস):

টেলি দুনিয়ার হার্টথ্রব কর্ণ সিংহ গ্রোভার বি-টাউনে পা রাখার আগেই দীর্ঘদিনের বান্ধবী শ্রদ্ধাকে বিয়ে করেন। কিন্তু, সেই বিয়ে ১০ মাসের বেশি টেকেনি।

 

 

 

মল্লিকা শেরাওয়াত-কর্ণ সিংহ গিল (১২ মাস):

বিয়ের এক বছরের মধ্যেই কর্ণ সিংহ গিলের সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যায় মল্লিকার। কর্ণ পেশায় একজন বিমানচালক।

বি-টাউনে গুঞ্জন, কেরিয়ার নিয়ে একটু বেশি সচেতন ছিলেন মল্লিকা, সেই কারণেই এই বিচ্ছেদ।

 

 

মনীষা কৈরালা-সম্রাট দাহাল (২৪ মাস):

নেপালি শিল্পপতি সম্রাট দাহালকে মনে ধরেছিল ‘দিল সে’-র নায়িকার। ২০১০ সালে চার হাত একও হয়েছিল তাঁদের। কিন্তু, সেই বিয়ের অস্তিত্ব ছিল মাত্র দু’বছর।

 

 

 

সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা-দিব্যা ভারতী (১১ মাস):

‘শোলা অউর শবনম’ ছবির শুটিং চলাকালীন দিব্যার প্রেমে পড়েছিলেন পরিচালক সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা।

১৯৯২ সালে চার হাত এক হয় তাঁদের। বিয়ের এক বছরের মাথায় রহস্যজনক ভাবে মৃত্যু হয় দিব্যার।

 

 

পুলকিত সম্রাট-শ্বেতা রোহিরা (১২ মাস):

২০১৪ সালে বিয়ের এক বছরের মধ্যেই শ্বেতার সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যায় ‘ফুকরে’-র চকোলেট হিরো পুলকিত সম্রাটের।

শোনা যায়, ইয়ামি গৌতমের সঙ্গে সম্পর্কের কারণেই নাকি এই বিচ্ছেদ।

 

 

অনুরাগ কাশ্যপ-কল্কি কোয়েচলিন (২৪ মাস):

২০১১ সালে চার হাত এক হয় কল্কি এবং অনুরাগের। কিন্তু, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অভিনেত্রীর সঙ্গে নাম জড়ায় পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপের।

শোনা যায়, বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের কারণেই কল্কির সঙ্গে বিচ্ছেদ হয় অনুরাগের।