রাকিব হাসান :

উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ। সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে কাজ শুরু করবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। উৎক্ষেপনের পর এরই মধ্যে বেশিরভাগ পরীক্ষা নিরিক্ষা শেষ হয়েছে বলে জানালেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ।

তবে এটির সফল পরিচালনার জন্য শুধু কারিগরি নয় বাণিজ্যিক দিক বিবেচনা করে দক্ষ লোক নিয়োগের পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ১১ মে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপন করা হয় বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১।

এরই মধ্যে নিজ কক্ষপথ ১১৯.১ পূর্ব দ্রঘীমাংশে পৌছে সফল সিগনাল পাঠাতে শুরু করেছে স্যাটেলাইটটি। গাজীপুর এবং বেতবুনিয়ার উপগ্রহ ভূ-কেন্দ্র থেকে পাওয়া যাচ্ছে এই সংকেত।

বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহারের জন্য এরই মধ্যে প্রস্তুত স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু -১। চলছে শেষ মুহুর্তের পরীক্ষা নিরীক্ষা। সেপ্টেম্বরে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রন কমিশন বিটিআরসি।

স্যাটেলাইটটি পরিচালনার জন্য এরই মধ্যে ৩০ জনকে উচ্চতর প্রশিক্ষনের মাধ্যমে দক্ষ করে গড়ে তোলা হয়েছে বলেও জানান সংস্থাটির চেয়ারম্যান। বঙ্গবন্ধু -১ স্যাটেলাইট ৪০টি ট্রান্স পন্ডারের ফ্রিকোয়েন্সি ক্ষমতা হলো ১ হাজার ৬০০ মোগাহার্টজ।

এর ব্যান্ডউইথ ও ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে ইন্টারনেট বঞ্চিত অঞ্চলে যেমন ইন্টারনেট সুবিধা দেয়া সম্ভব তেমনি, প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় দুর্গত এলাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রাখা সম্ভব বলে মনে করছেন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা।

এর পাশাপাশি স্যাটেলাইটটিকে বাণিজ্যিক ভাবে লাভবান করে তুলতে দুই স্তরের দক্ষ জনবল তৈরীর পরামর্শ দিয়েছেন প্রযুক্তিবিদরা।