ভারতকে ২২৭ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষে ইংল্যান্ড

0
71

৩৮ বছর বয়সী পেসার জেমস অ্যান্ডারসন ও বাঁহাতি স্পিনার জ্যাক লিচের জাদুকরী স্পিনে চেন্নাইয়ে ভারতকে ২২৭ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। এরফলে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজ জয় দিয়ে শুরু করলো ইংল্যান্ড।

প্রায় চার বছর পর ঘরের মাঠে কোনো টেস্ট ম্যাচ হারল ভারত। সবশেষে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে পুনে টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৩৩৩ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছিল ভারত।

এবার চেন্নাইয়ের চিপক স্টেডিয়ামে তারা ইংল্যান্ডের কাছে হারল ২২৭ রানে। চেন্নাইয়ের কোনো মাঠে প্রায় ২২ বছর পর হারল তারা। ১৯৯৯ সালে এমএ চিদম্বরম স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের কাছে ১২ রানে হেরেছিল ভারত।

এদিকে নিজের শততম টেস্ট খেলতে নেমে ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট পেয়েছেন অধিনায়কত্ব ক্যারিয়ারের ২৬তম জয়। যা কি না ইংল্যান্ডের যেকোনো অধিনায়কের সর্বোচ্চ টেস্ট জয়ের রেকর্ড। সাবেক অধিনায়ক মাইকেল ভনের অধীনেও ২৬ ম্যাচ জিতেছিল ইংলিশরা।

মঙ্গলবার ভারতকে জিততে হলে গড়তে হতো ইতিহাস। লক্ষ্য ছিল ৪২০। এত রান তাড়া করে এর আগে কোনো দল জেতেনি।  তাড়া করতে নেমে গতকাল বিকেলে ১ উইকেটে ৩৯ রানে দিন শেষ করে। আজ টেস্টের ৫ম ও শেষ দিন খেলতে নেমে ১৯২ রানে সবকটি উইকেট হারিয়ে ফেলে বিরাট কোহলির দল। ২২৭ রানের এ হার ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের কাছে রানের ব্যবধানে সবচেয়ে বড় হার ভারতের।

এ জয়ের ফলে এখন আইসিসি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট টেবিলেও শীর্ষে উঠে গেছে ইংল্যান্ড। পয়েন্টের হিসেবে ৪৪২ ও শতাংশের হিসাবে ৭০ দশমিক ২ শতাংশ পয়েন্ট পেয়ে সবার ওপরে তারা। এরপর যথাক্রমে নিউজিল্যান্ড (৭০.০ শতাংশ), অস্ট্রেলিয়া (৬৯.২ শতাংশ) ও ভারত (৬৮.৩ শতাংশ)।

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ইংল্যান্ড নিজেদের প্রথম ইনিংসে অধিনায়ক রুটের ডাবল সেঞ্চুরিতে ভর করে ৫৭৮ রানের বিশাল সংগ্রহ পায়। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভারত প্রথম ইনিংসে ৩৩৭ রানে অলআউট হয়ে যায়। ভারতকে চাইলেই ফলোঅন করাতে পারত ইংল্যান্ড। কিন্তু সেটা তারা না করে আবার ব্যাটিংয়ে নামে। ইংলিশদের দ্বিতীয় ইনিংস শেষ হয় ১৭৮ রানে। ভারতের টার্গেট দাঁড়ায় ৪২০। ১ উইকেটে ৩৯ রান নিয়ে চতুর্থ দিন শেষ করেছিল ভারত।

ফলে পঞ্চম দিন ৯০ ওভারে ম্যাচ জেতার জন্য তাদের প্রয়োজন ছিল ৩৮১ রান হাতে ছিল ৯ উইকেট। কিন্তু দিনের সপ্তম ওভারেই তারা হারায় নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পুজারাকে (৩৮ বলে ১৫)। পরে একই ওভারে অসাধারণ দুইটি ডেলিভারিতে শুবমান গিল (৮৩ বলে ৫০) ও অজিঙ্কা রাহানেকে (৩ বলে ০) সাজঘরে ফেরান জিমি অ্যান্ডারসন। এরপর একই স্পেলে ঋশভ পন্থকে (১১) জো রুটের ক্যাচে প্যাভিলিয়নে পাঠান ৩৩ বছর বয়সী এই ডানহাতি পেসার। তখন ভারতের সংগ্রহ মাত্র ১১০। প্রথম ইনিংসে একটুর জন্য সেঞ্চুরির দেখা না পাওয়া ওয়াশিংটন সুন্দরও ফিরলেন ৭ রান পরে।

দলের ব্যাটিংয়ে ধসের পরও হাল ছাড়েননি ভারত অধিনায়ক। রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান। গড়েন জুটি। কিন্তু অশ্বিনকে থামিয়ে দেন লিচ। ভেঙে যায় ৫৪ রানের জুটি। অশ্বিন ফেরার ৮ রানের মধ্যে দলীয় ১৭৯ রানে সাজঘরে ফেরেন বিরাট কোহলি। তার ব্যাট থেকে আসে সর্বোচ্চ ৭২ রান। তার আউটের মধ্য দিয়ে বন্ধ হয়ে যায় ভারতের জয়ের সম্ভাবনার সব দ্বার। শেষ পর্যন্ত ১৯২ রানে সবকটি উইকেট হারিয়ে হারের গ্লানি নিয়ে মাঠ ছাড়ে ভারত।

দ্বিতীয় ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন জ্যাক লিচ। ভারতীয় ইনিংসের ভিত্তি ধ্বংস করা অ্যান্ডারসন নিয়েছেন ৩ উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন জোফরা আর্চার, ডম বেস ও বেন স্টোকস।

ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন নিজের শততম টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করা ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট।