মানিকগঞ্জে মন্দির ভাংচুর; আ’লীগের নেতার বিরুদ্ধে মামলা; আটক ৬

0
84

মানিকগঞ্জের শিবালয়ে মন্দির ভাংচুর ও অপসারণ করার দায়ে আওয়ামী লীগ নেতাসহ ৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার ভোর রাতে শিবালয় উপজেলার শীলপাড়ার গ্রামে শীলপাড়া সার্বজনীন মন্দিরে এ ঘটনা ঘটায়।

এ ঘটনায় শিবালয়ের আফছার উদ্দিন (৫০), তেওতা গ্রামের লিটন নাথ (৩৫), দাসকান্দি গ্রামের মোমিন শেখ (৪০), ধুতরাবাড়ী গ্রামের সেন্টু শেখ(৩৮), ঘিওর উপজেলার ছাদেকুল ইসলাম (৩২), রাজবাড়ীর গোয়ালন্দর মাসুদ রানা (৪০) নামের ৬ জনকে আটক করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, শিবালয় উপজেলার শীলপাড়া সার্বজনীন মন্দিরের জমিকে কেন্দ্র করে ধীর্ঘদিন ধরে মন্দির কমিটির সভাপতি প্রমোদ শীল ওরফে সূর্য শীলের সাথে জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রহিম খানের বিরোধ চলছিল। এর জের ধরে সোমবার ভোররাতে আব্দুর রহিম খানের নির্দেশে তার ভাগিনা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলালউদ্দীনসহ ৫০/৬০ জন লোক দেশিও অস্ত্র নিয়ে মন্দিরের প্রতিমাসহ মন্দিরের একচালা টিনের ঘর ভেঙ্গে দেয়ে। এবং মন্দির ভাংগার মালামাল একটি ট্রাকে করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

এ সময় স্থানীয়রা টের পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পরে শিবালয় থানা পুলিশ মন্দিরের মালামালসহ ওই ট্রাকটি আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ট্রাক চালকসহ মন্দির ভাংচুর করা লোকজন পালিয়ে যায়।

এ ঘটনার পর সোমবার সকালে মন্দির কমিটির সভাপতি প্রমোদ শীল বাদি হয়ে রহিম খান ও তার ভাগিনা আলালসহ ৫০/৬০ জনের বিরুদ্ধে শিবালয় থানায় মামলা করেন। পরে শিবালয় থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ জনকে আটক করে।

শিবালয় শীলপাড়া সার্বজনীন মন্দির কমিটির সভাপতি সূর্য শীল বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রহিম খাঁনের নির্দেশে ভোর রাতে তার ভাগিনা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলাল উদ্দীনসহ ৫০/৬০ জন লোক মন্দির ভাংচুর করে। এবং মন্দিরের মালামাল নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এর আগেও বেশ কয়েকবার মন্দিরে হামলা চালিয়ে প্রতিমাহসহ মন্দির ভাংচুর করেন। এবং মন্দির ভাংগার হুমকি দেয় তিনি।

জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আব্দুর রহিম খাঁন বলেন, আমি ঘটনার সাথে জড়িত না। আমাকে হেয় করার জন্য আমার নাম দিয়েছেন। এ ঘটনর আগে থেকেই আমি ঢাকায় আছি।

মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাকির হাসান জানান, মন্দির ভাংচুর করার ঘটনায় শিবালয় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে মোমিন শেখ নামের এক ব্যাক্তিকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।