খোরশেদ আলম :

অবৈধ ভাবে বালি ভরাট করে ও স্থাপনা বানিয়ে সংকুচিত করে ফেলেছে রাজধানীর মিরপুর সিন্নিরটেক ও কাউন্দিয়া ইউনিয়নের যোগাযোগ ব্যবস্থার একমাত্র অবলম্বন তুরাগ নদীর দুই পাড়। ফলে একই সংসদীয় আসনের জনগন হলেও কাউন্দিয়া ইউনিয়নের জনগণ বঞ্চিত হচ্ছে আধুনিক যুগের নানা সুযোগ সুবিধা থেকে।

প্রযুক্তির যুগেও এই এলাকার মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে অর্থনৈতিক উন্নয়নের মহাসড়ক থেকে। এলাকার উন্নয়নে সেতু নির্মানের প্রতিশ্রুতি থাকলেও বাস্তবায়ন হচ্ছে না অদ্যবধি।

দখলদারদের কবলে তুরাগ নদী, একথা নতুন নয়। তবে রাজধানীর মিরপুর সিন্নিরটেক ও কাউন্দিয়া ইউনিয়ন এলাকায় দখলদারদের দৌরাত্ম এমন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে, নদীটি এখন বিলীন প্রায়।

এটি কাউন্দিয়া ইউনিয়ন, ঢাকা-১৪ আসনের জনগন হলেও সকল সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত ইউনিয়ন বাসী। মূল নদীর ওপরেই গড়ে উঠেছে বাড়ীঘর ও কলকারখানা। কিন্তু নদীকে বাঁচানোর সদিচ্ছা নেই কারো।
আর নদীতে ভারী জাহাজ চলাচলে ও বন্যার কারনে দুই পাড় ভেঙ্গে ২৫০ফুট প্রস্তের নদী এখন দাঁড়িয়েছে ৩০০ফুটে।

কিন্তুু বালি ফেলে দুই পাড় ভরাট করার ফলে ছোট হয়ে গেছে নৌকা পারাপারের জায়গা টুকুও, পানি হয়েছে দুষিত। এই নদীতে নিম্নবিত্তের মানুষ নৌকা পারাপারে কিছু অর্থ উপার্জন করলে চাঁদা নিচ্ছে প্রভাবশালীরা।
নানা সমস্যায় জর্জরিত এই নদীতে সেতু নির্মানে সরকারের প্রতিশ্রুতি থাকলেও মাঝ পথেই থেমে গেছে