মিয়ানমারকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করে যাচ্ছি- প্রধানমন্ত্রী

0
155

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা ১১ লাখ রোহিঙ্গা শুধু বাংলাদেশের সমস্যা নয়, এরা এই অঞ্চলের জন্য হুমকিও। এ সমস্যা সমাধানে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। মঙ্গলবার রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে আয়োজিত এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলের শান্তিনিরাপত্তায় কৌশলগত নীতিপ্রণয়ন নিয়ে আন্তর্জাতিক সেমিনার ‘ঢাকা গ্লোবাল ডায়ালগ ২০১৯’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কূটনীতি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়; এটা আমাদের পররাষ্ট্রনীতি। আমরা এই নীতি নিয়ে কাজ করছি। এটা বঙ্গবন্ধুর পররাষ্ট্রনীতি। মিয়ানমারের ১১ লাখ রোহিঙ্গা আমাদের এখানে আশ্রয় নিয়েছে। এটা নিয়ে আমরা তাদের সঙ্গে ঝগড়া করছি না। বরং আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমরা মিয়ানমারকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। এই সমস্যার আশুসমাধান হওয়া প্রয়োজন। এটা আমাদের দেশের জন্য হুমকিস্বরূপ। বিশ্ব সম্প্রদায়কে এই সমস্যার গুরুত্ব বুঝে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, প্রতিবেশী থাকলে সমস্যা থাকবে। কিন্তু সেটা সুন্দরভাবে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এর সমাধান করতে হবে। বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের মাধ্যমে সমস্যা সমাধান সম্ভব। আমরা ভারতের সঙ্গে ছিটমহল বিনিময় করেছি। এটা বিশ্বের একটি উদাহরণ। শান্তি-স্থিতিশীলতা বজায় রাখলে আঞ্চলিক নিরাপত্তা বজায় থাকে। এতে সবচেয়ে উপকৃত হবে এই অঞ্চলের মানুষগুলো।

মানুষের কল্যাণে সবাই মিলে কাজ করার জন্য তিনি সকল দেশের রাষ্ট্রনায়কের প্রতি আহ্বান জানান।

জলবায়ু পরিবর্তনের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনে বাংলাদেশের কোনো ভূমিকা নেই। কিন্তু এর প্রভাবে আমরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। একদিন আগেই আমরা প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলা করেছি। প্রাকৃতিক দুর্যোগ আসবেই এবং এটাকে মোকাবিলাও করতে হবে। আমরা সেটা করবও। দুর্যোগকালীন কী কী পদক্ষেপ নিতে হয়, তা আমরা জানি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য আমরা নিজস্ব অর্থায়নে ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছি। সেই অর্থ দিয়েই দুর্যোগ মোকাবিলায় যা যা করণীয় তা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে। এই স্বীকৃতি আমাদের ধরে রাখতে হবে। সে লক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৯৪ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে। সবার ঘরে আমরা বিদ্যুৎ পৌঁছে দিয়েছি।

সাগর ও মহাসাগরের গুরুত্ব প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নানা কারণে সাগর ও মহাসাগর গুরুত্বপূর্ণ। ভারত মহাসাগরের সঙ্গে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ রুট রয়েছে, যা দিয়ে পণ্য, তেল ও গ্যাস পরিবহন করা হয়। এ অঞ্চলের ৮০ শতাংশ তেলবাণিজ্য হয় এ রুট দিয়ে। সাগর ও মহাসাগর বিপুল পরিমাণ মৎস্য ও খনিজ সম্পদের ভাণ্ডার। এই সম্পদ দেশের উন্নয়নের কাজে লাগাতে হবে। ভূমি থেকে আমরা যে সম্পদ পাই সমপরিমাণ সম্পদ সমুদ্রসীমার মধ্য থেকে আহরণ করা সম্ভব। সেক্ষেত্রে লক্ষ রাখতে হবে যেন মাত্রাতিরিক্ত সম্পদ আহরণ করা না হয়। সেটা আবার সাগর ও মহাসাগরের জন্য হুমকিস্বরূপ।

তিনি আরও বলেন, ভারত মহাসাগরের তীরে ৪০টি স্বল্পোন্নত দেশে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৩৫ শতাংশের বাস। আর বঙ্গোপসাগরের তীরে এশিয়ার ছয়টি দেশের অবস্থান। সাগর ও মহাসাগর দ্বারা এসব মানুষের অথনৈতিক জীবন নানাভাবে প্রভাবিত হয়। এই দেশগুলোর অথনৈতিক নিরাপত্তার জন্য সাগর ও মহাসাগরে স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে হবে। বর্তমানে বিশ্বের সব সাগর ও মহাসাগর নানা সমস্যায় আক্রান্ত, যা পৃথিবীর সামগ্রিক পরিবেশকে হুমকির মুখে ফেলে দিচ্ছে। কারও একার পক্ষে এই সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়। সবার অংশগ্রহণের মাধ্যমে এটা সমাধান করা যাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গোপসাগর ও ভারত মহাসাগর এলাকায় জলদস্যু, সন্ত্রাসী, মাদক, ডাকাতি, অস্ত্রপাচারকারী ও মানবপাচারকারীরা আগত নিরাপত্তা ঝুঁকি সৃষ্টি করছে। এগুলো নিরসনে একযোগে কাজ করতে হবে।

সাগরের পরিবেশের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিবছর সাগর-মহাসাগরগুলোতে যুক্ত হচ্ছে আট মিলিয়ন টন প্লাস্টিক বর্জ্য। আমি বিশ্বাস করি কোনো একক দেশের পক্ষে এসব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয। সকলের মিলিত হয়ে এসব সমস্যার সমাধান করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশ দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করছে। তেমনিভাবে ঢাকা গ্লোবাল ডায়ালগ-২০১৯ পরিবেশবান্ধব শান্তি ও সমৃদ্ধি অর্জনের পথে এই অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে একটি প্লাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে। এই ডায়ালগে যেমন সুপারিশ প্রদান করা হবে, এবং তা এই অঞ্চলের সম্পর্ক উন্নয়ন সহযোগিতা জোরদার সর্বোপরি এই অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে সহায়ক হবে বলে আমি বিশ্বাস করি। এতে অর্জিত সাফল্য থেকে এই অঞ্চলের দেশগুলো শিক্ষাগ্রহণ করবে এবং উপকৃত হবে। সবচেয়ে উপকৃত হবে আমাদের এই অঞ্চলের দরিদ্র মানুষগুলো।

নিয়মিত ঢাকা ডায়ালগের আয়োজন হোক- এই আশাবাদ ব্যক্ত করার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী সেমিনারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

সেমিনারে ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজি ও বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের মধ্যে কীভাবে যোগসূত্র স্থাপন করে বাংলাদেশসহ অন্যান্য সমমনা দেশগুলো তাদের ভবিষ্যৎ উন্নয়ন পথযাত্রা নির্ধারণ করতে পারে, সেটি নিয়ে আলোচনা হবে। এতে প্রায় ৫০টি দেশের মন্ত্রী, রাজনীতিবিদ, কূটনীতিক, আমলা, একাডেমিশিয়ান, বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিসহ প্রায় ২০০ জন অংশগ্রহণ করেন।