মিয়ানমার আকাশসীমা লংঘন করে উস্কানি দিলেও বাংলাদেশ সাড়া দেয়নি: বিজিবি মহাপরিচালক

0
179

মিয়নমার বার বার আমাদের আকাশসীমা লংঘন করে উস্কানি দিলেও তাতে বাংলাদেশ সাড়া দেয়নি বলে জানিয়েছেন বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন।

বিজি সদর দফতরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। ইয়াবা পাচারের সাথে বিজিবির কোন সদস্য জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখে দৃষ্টান্তমূলক কঠিন শাস্তি দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর সার্বিক কর্মকাণ্ড ও সফলতা গণমাধ্যমে তুলে ধরতে পিলখানা সদর দফতরে এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

সীমান্তে ইয়াবাসহ মাদক ও চোরাচালান বন্ধে বিজিবির ভূমিকা তুলে ধরেন বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন। জানান, এই অপরাধে বিজিবির কোন সদস্যের জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে নেয়া হবে কঠিন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা।

তিনি বলেন, এখন সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদ বিশ্বের প্রধান সমস্যা। আর সীমান্ত এলাকায় কমন শত্রু হচ্ছে চোলাচালানি, মাদক পাচারকারী, নারী পাচারকারী। আমরা দুই দেশকে (ভারত ও মিয়ানমার) বলেছি, এগুলোর বিরুদ্ধে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তারা বুঝতে পেরেছে।

মিয়ানমারের উসকানি সত্ত্বেও যুদ্ধ না বাঁধায় সরকার প্রধান শেখ হাসিনার দূরদর্শিতার প্রশংসা করেন মেজর জেনারেল আবুল হোসেন। বলেন, অ্যাপাচি হেলিকপ্টার অবৈধভাবে ১৮ বার ঢুকেছে বাংলাদেশে, আমরা কোনো সাড়া দিইনি, সাড়া দিলে যুদ্ধ হত

সেখানে হাজার হাজার লোক মারা যেত এবং আমাদের উপর দোষ আসত। প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শিতায় তা হয়নি। মিয়ানমারের উদ্দেশ্য ছিল যুদ্ধ করার। কিন্তু না করার কারণে আমরা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছি বলে জানান তিনি।

সীমান্ত এলাকাকে আরও সুরক্ষিত করতে প্রাথমিকভাবে বিভিন্ন স্থানের ৫১১ কিলোমিটার এলাকাকে নজরদারির আওতায় আনা হচ্ছে বলে জানান বিজিবি প্রধান। এসব এলাকায় সিসি ক্যামেরা, টাওয়ার, ফ্লাড লাইট, সেন্সর থাকছে বলেও জানান তিনি। এসবের অনেক কিছুই নিয়ন্ত্রণ হবে কেন্দ্রীয়ভাবে। ফলে কে কী করছে, তা ঢাকা থেকে বসে জানা যাবে বলে জানান তিনি।