মুশফিকের বদলে টেস্ট অধিনায়ক সাকিব

0
61

টেস্ট অধিনায়কত্ব হারালেন মুশফিকুর রহিম। ক্রিকেটের পুরনো এই সংস্করণে নতুন অধিনায়ক করা হয়েছে সাকিব আল হাসানকে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সভায় টেস্ট দলের সহ-অধিনায়ক হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে মাহমুদউল্লাহকে। এত দিন এ দায়িত্ব পালন করছিলেন তামিম ইকবাল। তাঁকে বানানো হয়েছে টি-টোয়েন্টি দলের সহ-অধিনায়ক। মাশরাফি বিন মুর্তজা থাকছেন ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে।

রোববার বিসিবির মিটিং শেষে এ কথা জানান সংস্থাটির প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। মুশফিক এবং অন্যদের সঙ্গে আলোচনা করেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান পাপন।

আগামী সিরিজ থেকে আমাদের টেস্ট অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। সহ-অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। অন্য ফরম্যাটে যেভাবে ছিল সেভাবেই থাকবে।

টেস্ট দলের সহ-অধিনায়ক ছিলেন ওপেনার তামিম ইকবাল। তার জায়গায় দায়িত্ব পাওয়া মাহমুদউল্লাহ আগেও সহ-অধিনায়ক ছিলেন।

২০১১ সালে বাংলাদেশ দলের টেস্ট অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পেয়েছিলেন মুশফিক। এরপর দলকে অনেকগুলো স্মরণীয় সাফল্য এনে দেন তিনি। এর মধ্যে ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া ও শ্রীলঙ্কার মাটিতে শ্রীঙ্কাকে হারানো।

তিনি বাংলাদেশের সফলতম টেস্ট অধিনায়কও বটে। বাংলাদেশ সাকুল্যে যে ১০ টেস্টে জয়লাভ করে তার সাতটি মুশফিকের নেতৃত্বে। মুশফিকের অধিনায়কত্বে ড্র করেছে ৯ টেস্টে।

বিভিন্ন কারণে তিনি টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে চট্টগ্রামে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট শেষে টিম ম্যানেজমেন্টর বিপক্ষে কথা বলে কোচ ও বিসিবি প্রধানের বিরাগভাজন হন। অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে আরেকবার টিম ম্যানেজমেন্টের সমালোচনা করে তোপের মুখে পড়েন মুশফিক। তখন থেকেই গুঞ্জন অধিনায়কত্ব হারাচ্ছেন মুশফিক।

তবে সংবাদ সম্মেলনে মুশফিকের সারানোর অন্য কারণের কথা বলেছেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। ব্যাটিংয়ে যাতে বেশি মনোযোগ দিতে পারে সে কারণেই নাকি তাকে অধিনায়কত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

নাজমুল হাসান পাপন বলেন, মুশফিক আমাদের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান। সে যাতে ব্যাটিংয়ে বেশি মনোযাগ দিতে পারে এ জন্যই তার কাছ থেকে অধিনায়কত্ব নিয়ে নেওয়া হয়েছে।

গত মার্চে টি-টায়েন্টি ফরম্যাট থেকে মাশরাফি অবসর নিলে দায়িত্ব দেওয়া হয় সাকিব আল হাসানকে।

টেস্ট অধিনায়কত্ব অবশ্য সাকিবের জন্য নতুন নয়। ২০০৯ সালে মাশরাফি ইনজুরিতে পড়লে দায়িত্ব পান সাকিব। কিন্তু অধিনায়কত্বের পর্বটা মোটেও সুখের হয়নি সাকিবের। ৯ টেস্টে নেতৃত্ব দিয়ে জয়ের দেখা পান একটিতে, হার আটটিতেই।

জানুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হোম সিরিজে টেস্ট অধিনায়কত্বের দ্বিতীয় পর্ব শুরু করবেন সাকিব।