নতুন মেয়াদ লাগিয়ে সরবরাহ করা হয় মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্য (ভিডিও)

0
391

সাইদুর রহমান আবির:

শিশু খাদ্য। গুড়া দুধ, চকোলেট, চিপস, হরলিকস এবং নানা ধরনের বিস্কুট। সবই এসেছে বিদেশ থেকে। কিন্তু সরবরাহ দিতে না পারায় মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে। মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পর এসব পণ্যের লেভেল উঠিয়ে নতুন মেয়াদের লেভেল লাগিয়ে বাজারে সরবরাহ করার জন্য প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

এর আগেও মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য নতুন মেয়াদ লাগিয়ে সরবরাহ করা হয়েছে বাজারে। রাজধানীর অভিজাত এলাকা গুলশানে একটি গোডাউনে পাওয়া গেছে এমন পণ্য। ।

শুধু কি পুরাণ ঢাকা? এবার রাজধানীর অভিজাত এলাকা গুলশানের ৭ নম্বর রোডের একটি অভিজাত বাড়ির মধ্যেই শিশু খাদ্যের মেয়াদ শেষ হলেও অভিনব প্রতারণা করছে। 

মাওলা ট্রেডার্সের গোডাউন, ভেতরে যত পণ্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে শিশু খাদ্য। রয়েছে গুড়া দুধ, চকলেট, চিপস, হরলিকস এবং বিভিন্ন প্রকারের বিস্কুট। টয়লেটের ভেতর শিশু খাদ্য রাখতেও দ্বিধাবোধ করেনি এই প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টরা।

এখানের সকল পণ্য মালয়েশিয়া দুবাই এবং সিঙ্গাপুর থেকে আমদানি করা হয়।সরবরাহ করে গুলশানের ডিসিসি মার্কেটসহ অভিজাত অনেক মার্কেটে। 

এখানের অধিকাংশ পণ্যের বিএসটিআই অনুমোদন নেই, নেই কোন পণ্যের মেয়াদ,মেয়াদোত্তীর্ণ শিশু খাদ্যগুলোর প্যাকেট থেকে পুরাতন মেয়াদ মুছে ফেলে নতুন করে মেয়াদ লাগানো হয়।।

সর্বোচ্চ অনৈতিক এই কর্মকান্ডের জন্য প্রতিষ্ঠানটির মালিক কিছুই জানেন না বলে দায় এড়িয়ে যান। আমদানিকৃত পণ্য এবং এসব প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে নিজেদের অবস্থানের কথা জানান বিএসটিআই। 

শিশুদের জীবন নিয়ে খেলা করা এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত।

সব কিছুর উর্ধে আইন প্রয়োগের পাশপাশি এ ধরনের ব্যবসায়ীদের মানসিকতা পরিবর্তন হলেই কেবল এই সমস্যা সমাধান সম্ভব।