ময়মনসিংহে আউশ ধানের ফলন কম হওয়ায় আবাদও কমেছে

0
43

সাইফুল ইসলাম : ময়মনসিংহে আউশ ধানের ফলন কম হওয়ায় আবাদও কমেছে। বেড়েছে বোরো ধানের আবাদ। বর্তমান সরকারের প্রনোদনায় বাংলাদেশ পুরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট আউশ ধানের উন্নত জাত বিনাধান-১৯ উদ্ভাবন করেছে। যা চলতি মৌসুমে আবাদ করে বাম্পার ফলন পাওয়া গেছে।

ফলে আগামীতে আউশ ধানের আবাদ বৃদ্ধির উজ্জ্বল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

বাংলাদেশ পরমাণূ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এবার খরা সহিষ্ণু আউশ ধানের উন্নতজাত বিনাধান-১৯ উদ্ভাবন করেছে। চলতি মৌসুমে ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার গোপালপুরে বিনাধান-১৯ আবাদ করে বাম্পার ফলন পাওয়া গেছে। এতে চাষিরা দারুন খুশি।

যেখানে সেচের পানি অপ্রতুল বা প্রয়োজনমত বৃষ্টিপাতের অভাবে, সেখানে এই জাতের ধান আবাদ করা যায়। খরাপীড়িত বরেন্দ্র ও পাহাড়ি এলাকাসহ সকল উঁচু ও মধ্যম জমিতে বিনাধান-১৯ আবাদ করা সম্ভব বলে জানালেন পরমাণূ কৃষি গবেষণার কর্মকর্তা ড. হোসনে আরা বেগম।

আউশ মৌসুমে বিনাধান-১৯ এর আবাদ বৃদ্ধি পেলে বাড়বে ডাল, তেল ও গম জাতীয় শস্যের আবাদ। ফলে দেশ শস্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করবে বলে মনে করেন বিজ্ঞানী ড. আবুল কালাম আজাদ।

কম সময়ে বিনাধান-১৯ চাষে ভালো ফলন পাওয়া যায়। ধান চিকন হওয়ায় চাহিদাও বেশী বলে দাবি করেন বিনার মহাপরিচালক ড. বিরেশ কুমার গোস্বামী।

আর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক জানান বিনাধান-১৯ চাষে আউশের আবাদ বাড়বে এবং ভালো ফলন পাওয়া যাবে বলে । ধানচাষে সেচের পানির ব্যাপক ব্যবহার রোধের পাশাপাশি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বিনাধান-১৯ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন গবেষকরা।