যুক্তরাষ্ট্রে গ্রেপ্তার মেক্সিকোর মাদক সম্রাট এল চাপোর স্ত্রী

0
24

মেক্সিকোর কারাবন্দী মাদক সম্রাট এল চাপো গুজম্যানের স্ত্রী এমা করোনেল এইসপুরোকে মাদক পাচারের সন্দেহে যুক্তরাষ্ট্র থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ওয়াশিংটন ডিসির বাইরে ডালাস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সোমবার গুজম্যানের স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করে যুক্তরাষ্ট্রের কর্তৃপক্ষ। দেশটির বিচার বিভাগ এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

৩১ বছর বয়সী এই নারীর বিরুদ্ধে কোকেন, মেথামফেটামিন, হেরোইন, গাঁজা পাচারের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ জানিয়েছে।

মেক্সিকোর অন্যতম কুখ্যাত মাদক পাচারকারী গোষ্ঠী সিনালোয়া কার্টেলের নেতা ছিলেন গুজম্যান। তিনি যুক্তরাষ্ট্রে শত শত টন মাদক পাচার করেন। মাদক কারবার ঘিরে তাঁর নির্দেশে অনেক মানুষকে হত্যা করা হয়।

গুজম্যানকে ২০১৭ সালে মেক্সিকো থেকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণ করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণের দুই বছরের মাথায় বিচারে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করে সাজা দেওয়া হয়। ৬৩ বছর বয়সী গুজম্যান বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের কারাগারে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগ করছেন।

গুজম্যান ছিলেন মেক্সিকোর ‘সিনালোয়া কার্টেল’ এর সাবেক প্রধান। কর্মকর্তাদের তথ্যমতে, যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বড় মাদক পাচারকারী ছিল এই সংঘটি।

২০১৯ সালে গুজম্যানের বিচারের সময় তার জীবনের রোমহর্ষক কাহিনী বেরিয়ে আসে। ১৩ বছর বয়স থেকেই ধর্ষণ এবং সাবেক কার্টেল সদস্য ও প্রতিযোগীদের ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা করা শুরু করেন তিনি।

মঙ্গলবার ওয়াশিংটন ডিসির ফেডারেল আদালতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এমা করোনেলকে হাজির করা হবে বলে জানায় জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট।

মাদক পাচারের অভিযোগ ছাড়াও এমা করোনেলের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে মেক্সিকোর কারাগার থেকে তার স্বামী এল চাপো গুজম্যানকে পালাতে সহায়তা করার অভিযোগ রয়েছে।

এমা দ্বৈত নাগরিকত্বের অধিকারী। তিনি মেক্সিকোর পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। এমাকে যে যুক্তরাষ্ট্র গ্রেপ্তার করতে চায়, তা আগে জানা যায়নি।

নিউইয়র্কে গুজম্যানের প্রায় তিন মাস ধরে বিচার চলাকালে তাঁর স্ত্রী এমা প্রায় প্রতিদিনই আদালতে আসতেন। বিচারের আগে গুজম্যান যখন প্রায় দুই বছর ধরে কারাবন্দী ছিলেন, তখন তাঁর সঙ্গে এমাকে যোগাযোগ করতে দেওয়া হয়নি। গুজম্যানের বিচার চলাকালে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিল যে তাঁর ব্যবসা ও কারাগার থেকে পালানোর ঘটনায় স্ত্রী এমা জড়িত। তবে তখন কর্তৃপক্ষ এমাকে ধরেনি।