রাকুলের ইউটিউব চ্যানেল থেকে করা আয় যাবে করোনাসহায়তায়

0
349

ভারতের লকডাউনে ঘরবন্দী বলিউড তারকারা। আর এসময় কেউ ঘরে বসে সিনেমা বানাচ্ছেন, কেউ গান করছেন। আর দক্ষিণ ভারতের অভিনেত্রী রাকুল প্রীত সিং ঘরবন্দী সময় কাটাচ্ছেন ইউটিউব ভিডিও বানিয়ে। ইনস্টাগ্রামে ভক্তদের উদ্দেশ্যে এমনই এক পোস্ট দেন রাকুল প্রীত সিং। এই ইউটিউব থেকে পাওয়া অর্থ চলে যাবে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর করোনাসহায়তার জন্য তৈরি ‘কেয়ার ফান্ড’ তহবিলে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রাকুল প্রীত একটি ভিডিও শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘আমার হাতে এখন প্রচুর সময়। ভাবলাম, ইউটিউব চ্যানেলটা খুলে ফেলি। মজার মজার ভিডিও দেব। আর এর থেকে আসা আয় চলে যাবে কেয়ার ফান্ডে। চলুন, আনন্দ ও সুখ ছড়িয়ে দিই, যে যেভাবে পারি। এখনই আমার চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।’

যদিও রাকুল প্রীত সিংয়ের ইউটিউব চ্যানেল খোলা হয় ২০১৩ সালে। এত দিন তিনি অনিয়মিত ছিলেন। এখন থেকে নিয়মিত হতে পারেন। সেই আশ্বাসই দিয়েছেন। তবে শুধু ইউটিউবের আয় দিয়েই নয়, গুরুগ্রামের একটি বস্তির ২০০ পরিবারকে খাবারের ব্যবস্থাও করেছেন তিনি। সে খাবারের ব্যবস্থা হয়েছে তাঁর নিজের বাড়িতেই। এই আয়োজনকে রাকুল ‘ছোট একটি চেষ্টা’ বলে বিনয় প্রকাশ করেছেন। রাকুল প্রীত বলেন, ‘আমার বাবা এই বস্তিবাসীর কথা বলেছিলেন। যেখানে তাঁরা কেউ–ই তাঁদের মৌলিক অধিকারটুকু পাচ্ছেন না। তাঁদের দিনে আমরা দুই বেলা খাবার দিচ্ছি। লকডাউন শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা এটি চালিয়ে যাব। যদি লকডাউন বাড়ানো হয়, তাহলে আমরাও এটি চালিয়ে যাব। আপাতত এপ্রিল মাস চলবে। বাকিটা অবস্থার ওপর নির্ভর করবে। রান্নার ব্যবস্থাও করা হয়েছে আমাদের সোসাইটিতে। এবং এখান থেকেই তা লোকজনের কাছে পাঠানো হয়।’

রাকুল প্রীত আরও বলেন, ‘এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে আমরা অনেকেই সচ্ছল। আমাদের ঘর আছে। আমরা সাহায্য পাই। খাবার আছে, জরুরি অবস্থায় খাবারের ব্যবস্থা করারও সক্ষমতা আছে। কিন্তু এখন মানুষকে দেওয়ার সময়। খাওয়ার সময় মানুষের মুখে হাসি দেখার চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই আমার কাছে। এটা আমাকে মারাত্মক সুখী করে। এ কারণে এই ধরনের সিদ্ধান্ত আমি নিয়েছি। আর এটা আমার পক্ষ থেকে ছোট একটা প্রচেষ্টা মাত্র।’