রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের প্রস্তাবে রাশিয়া ও চীনের বিরোধিতা

0
109

রোহিঙ্গা সঙ্কটের অবসানে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব উত্থাপন করলেও রাশিয়া ও চীনের কারণে তা পাস হয়নি। তবে ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদ সর্বসম্মতভাবে একটি বিবৃতিতে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উপর হামলায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ বন্ধ করতে, মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছে নিরাপত্তা পরিষদ। সেই সঙ্গে রাখাইনে বেসামরিক প্রশাসন পুনঃপ্রতিষ্ঠা করে আইনের শাসন নিশ্চিত করতে এবং মানবাধিকার রক্ষার অঙ্গীকার ও দায় পূরণে মিয়ানমার সরকারকে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আহবান জানানো হয়েছে বিবৃতিতে।

এছাড়া রোহিঙ্গাদের ওপর সেনাবাহিনীর অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ বন্ধ করে বেসামরিক প্রশাসন পুনঃপ্রতিষ্ঠার আহবানও জানানো হয়।

রোহিঙ্গা সঙ্কটের অবসানে সোমবার যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব পাসের উদ্যোগ নিলেও মিয়ানমারের দুই মিত্র দেশ ভেটো ক্ষমতার অধিকারী রাশিয়া ও চীনের কারণে তা শেষ পর্যন্ত বাদ দেওয়া হয়। এর বদলে ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদ সর্বসম্মতভাবে একটি বিবৃতি দেয়, যেখানে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে লক্ষ্য করে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

বিবৃতিতে রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ বন্ধ করতে বলা হয়। সেই সঙ্গে রাখাইনে বেসামরিক প্রশাসন পুনঃপ্রতিষ্ঠা করে আইনের শাসন নিশ্চিত করতে এবং মানবাধিকার রক্ষার অঙ্গীকার ও দায় পূরণে মিয়ানমার সরকারকে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

রাখাইনে সহিংসতাকে ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ হিসেবে চিহ্নিত করে এর সমালোচনা করে আসছে জাতিসংঘ। নিরাপত্তা পরিষদ বলছে,  আইনের শাসন ও মানবাধিকার নিশ্চিত করে সকল নাগরিককে রক্ষা করা যে রাষ্ট্রের দায়িত্ব, সে কথাও মিয়ানমার সরকারকে মনে করিয়ে দিয়েছে নিরাপত্তা পরিষদ।

সেই সঙ্গে রাখাইনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগের স্বচ্ছ তদন্ত নিশ্চিত করতে জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানানো হয়েছে মিয়ানমার সরকারের প্রতি।

রাখাইনে অবিলম্বে নির্বিঘ্নে মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর এবং সাংবাদিকদের সেখানে যাওয়ার সুযোগ দিতে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘের এই সংস্থা। পাশাপাশি জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসকে ৩০ দিন পর মিয়ানমারের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে একটি মূল্যায়ন প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।