রূপচর্চায় ফল ও সবজির খোসার গুণ

0
100

ফল বা সবজি খাওয়ার সময় খোসা ফেলে দিই আমরা। ফল বা সবজির খোসায় আবার কী গুণ থাকবে তাই আমরা মনে করি। তবে আপনি কী জানেন, এই সব সবজি বা ফলের খোসা অনেক সমস্যার সমাধান করতে পারে। দেখে নিন প্রতিদিন যে ফল বা সবজির খোসা আমরা ফেলে দিই তা কী কী উপকারে আসতে পারে-

আলুর খোসা

আলুর খোসাতে আছে ভিটামিন সি। যা চোখের নিচের কালি ও চোখের ফোলাভাব দূর করতে সাহায্য করে। কিছু আলুর খোসা নিন। এবার এই খোসাগুলো ফ্রিজে ১০ থেকে ১৫ মিনিট রেখে দিন।

ওই খোসাগুলো চোখের চারপাশে লাগান। কিছুক্ষণ পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। দেখবেন কিছুদিন পর চোখের  নিচের কালি চলে গেছে ও চোখের ফোলাভাব কমে গেছে।

কলার খোসা

দাঁতের হলদে ভাব দূর করবার জন্য কলার খোসা খুব ভালো কাজ করে। কারণ এতে রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ, ম্যাগনেশিয়াম ও পটাশিয়াম যা দাঁতের এলামেল ভালো রাখতে সাহায্য করে এবং দাঁত উজ্জ্বল করে।

কলার খোসা ছোটো ছোটো টুকরো করে তা দাঁতে নিয়মিত ঘষুন। পার্থক্যটা আপনি নিজেই টের পাবেন। দাঁতের এলোমেল ভাব দূর হবে একই সাথে দাঁত করবে উজ্জল।

কমলা লেবুর খোসা

কমলা লেবুর খোসার একটি নিজস্ব গন্ধ আছে। তাই গোসলের সময় যদি কমলা লেবু খোসার গুঁড়ো ব্যবহার করা হয় তবে সেই গন্ধ সারাদিন আমাদের শরীরে থাকে। এছাড়া কমলা লেবুর খোসা দিয়ে খুব ভালো ফেস প্যাক বানানো যায়।

পাতি লেবুর খোসা

পাতি লেবুর খোসায় এক ধরনের অ্যাসিড থাকে যা নখ পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। হালকা গরম পানিতে  ১৫ মিনিট আপনার হাত ভিজিয়ে রাখুন। তারপর নখে লেবুর খোসা ঘষুন। নখ হয়ে উঠবে সুন্দর।

অ্যাভোকাডোর খোসা

রুক্ষ ও শুষ্ক ত্বকের জন্য অ্যাভোকাডোর খুব ভালো কাজ করে। অ্যভোকাডোর খোসা নিন। তার পেস্ট বানিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন। ১৫ মিনিট বাদে দেখবেন আপনার ত্বক চকচক করছে।

পেঁপের খোসা

পেঁপের খোসা ত্বকে বয়সের ছাপ কমাতে সাহায্য করে। পেঁপের খোসা ৫ মিনিট মুখে ঘষুন। ৫ মিনিট বাদে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। উপকার পাবেন।

এছাড়া পেপের মধ্যে অ্যান্টিএজ়িং উপাদান আছে যা আমাদের ত্বকের জন্য খুবই ভালো। এই উপাদানগুলোর ব্যবহার আপনার এতোদিন জানা ছিল না । এখন যেহেতু জেনে ফেললেন তাহলে শুরু করে দিন এর ব্যবহার।