শারমিন আজাদ :

বিদেশী ওষুধ বিক্রি হচ্ছে রেজিস্ট্রেশন নম্বর ছাড়া। আর সে ওষুধ বিক্রি করছে যেসব ফার্মেসী, তাদেরও নেই বিদেশী ওষুধ বিক্রির লাইসেন্স। বিক্রেতারা বলছেন, প্রেসক্রিপশনে থাকে বলেই তারা বিক্রি করছেন এসব ওষুধ। চিকিৎসকদের অভিমত, এসব ওষুধ হতে পারে প্রাণনাশক।

এসব ফার্মেসির একটারও নেই বিদেশী ওষুধ বিক্রির অনুমোদন। অথচ দেদারসে বিক্রি হচ্ছে।
নিময় অনিয়মের ক্যামেরার সামনে পুরোপুরি অস্বীকার করলেও, ক্যামেরা ছাড়া যেতেই অকপটে বের করলেন ভারতীয় ওষুধ। যার নেই কোন ডিএআর নম্বর, এমআরপি বা আমদানিকারকের নাম।

শুধু মাল্টিভিটামিন ওষুধই নয়, হাড়ের রোগের বা প্যারালাইসিসের স্প্রেও বিক্রি হচ্ছে লাইসেন্স ছাড়া এসব ফার্মেসীতে। ওষুধগুলোর কোন কোনটির গায়ে প্রস্তুতকারক দেশের নামও লেখা নেই।

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের নজরদারিতেও এসেছে এই অনিয়ম। চলছে অভিযান, হচ্ছে জরিমানা।

চিকিৎসকরা মনে করছেন এসব ওষুধ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তারপরও বিক্রি হচ্ছে অবৈধ ওষুধ। দোকানী দোষ দিচ্ছেন ওষুধ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে। যদিও তারা ধরাছোঁয়ার বাইরে।