সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদে বিশ্বাসীদের দেশ ও ধর্ম নেই : প্রধানমন্ত্রী

0
111

যারা সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী তাদের দেশ ও ধর্ম বলে কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জঙ্গীবাদের মত ভুল পথে যেন ছেলে মেয়েরা না যায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে সকলের প্রতি আহবান জানান তিনি।

সকালে র‌্যাব সদর দপ্তরে র‌্যাবের ১৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে তিনি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড দমনে র‌্যাব গুরূত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করায় বাহিনীকে অভিনন্দন জানান।

মাদক নির্মূল ও জলদস্যুতা দমনে র‌্যাবের দক্ষতার প্রশংসা করে, বাংলাদশকে কেউ যেন জঙ্গীরাষ্ট্র বলতে না পারে, সে ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ভ’মিকা থাকার আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশের আভ্যন্তরিক সন্ত্রাস দমনের উদ্দ্যেশে ২০০৪ সালে গঠিত হয় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটলিয়ন র‌্যাব।
বাংলাদেশ সেনা, নৌ, বিমান এবং পুলিশ সদস্যদের নিয়ে গঠিত চৌকশ এ বাহিনীটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের অধীনে এ পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান অস্ত্রসহ আটক করেছে কয়েক শতাধিক চিহ্নিত সন্ত্রাসীকে।

বাহিনীর ১৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রীর দরবারে উপস্থিত হয়ে দেশের আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় র‌্যাব সদস্যদের দেশপ্রেম, আন্তরিকতা, সততা, ও পেশাদারিত্ব মনোভাবের ভূয়শী প্রশংসা করেন সরকার প্রধান।

দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখার পাশাপাশি সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদরে বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে র‌্যাব সদস্যদের প্রতি নির্দেশ দেন তিনি।

সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করতে র‌্যাবের কর্মকান্ডকে স্বাগত জানিয়ে দস্যুদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে সব ধরনের সহায়তা অব্যাহত রাখার ঘোষনা দেন প্রধানমন্ত্রী।  পরে র‌্যাব সদর দপ্তর কমপ্লেক্সের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।