সাহসী তৌকীর

0
49

১৯৭১ সাল। বন্ধুরা মুক্তিযুদ্ধে চলে যায়। ইন্টার্নির ছাত্র জাহিদ থেকে যায় ছাত্রাবাসে। পাকিস্তানি বাহিনীর আহত সদস্যদের চিকিৎসার জন্য ছাত্রাবাসে আসে তারা। জাহিদকে নিয়ে যেতে চায় চিকিৎসার জন্য। কিন্তু দেশবিরোধীদের প্রস্তাবে রাজি হননি তিনি। এরপর নির্যাতনে শহীদ হন জাহিদ। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজশাহী মেডিকেল কলেজে ঘটে যাওয়া এমন সত্য ঘটনা নিয়ে নাটক ‘সাহস’। জাহিদের চরিত্রে দেখা যাবে পরিচালক ও অভিনেতা তৌকীর আহমেদ।

সম্প্রতি ঢাকার মিরপুরে এবং সাভারের বিরুলিয়ায় শেষ হয়েছে নাটকটির কাজ। আগেও একাধিক মুক্তিযুদ্ধের নাটকে অভিনয় করেছেন তৌকীর আহমেদ। মুক্তিযুদ্ধের গল্পের যেকোনো নাটকে অভিনয়ের ভালো লাগা তাঁর কাছে অন্য রকমের। এই নাটকে কাজ করে সেই মাত্রা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে বলে জানান তিনি। তৌকীর আহমেদ বলেন, ‘একটি সত্য ঘটনা ধরে নাটকটির গল্প। তা ছাড়া গল্পের মধ্যে একধরনের সহজবোধ্যও আছে।’

তবে বর্তমান সময়ে মুক্তিযুদ্ধের নাটকে সময়কে তুলে এনে উপযুক্তভাবে তৈরি করা কঠিন বলে মনে করেন তৌকীর আহমেদ। তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে চ্যানেলগুলো নাটকের জন্য যে বাজেট দেয়, সেই বাজেটে মুক্তিযুদ্ধের সময়কে ধরে লোকেশন, কস্টিউম, সেট তৈরি করে সঠিকভাবে মুক্তিযুদ্ধের নাটক করা কঠিন। সাহস নাটকটি লিখেছেন গুঞ্জন রহমান আর পরিচালনা করেছেন ওয়াহিদ পলাশ। গল্পের সত্য ঘটনা সংগ্রহ করা হয়েছে রাজশাহীর একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা বর জাহানের কাছ থেকে। কাল ২৬ মার্চ রাতে মাছরাঙা টেলিভিশনে প্রচারিত হবে নাটকটি। আরও অভিনয় করেছেন নরেশ ভূঁইয়া, সাহাদৎ হোসেন প্রমুখ।