গ্লোবাল সামিট অন ওমেন- সম্মেলনে যোগ দিতে সিডনি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী

0
60

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তিনদিনের সরকারি সফরে অস্ট্রেলিয়া পৌঁছেছেন। স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ৫মিনিটে সিডনি ইন্টারন্যাশনাল এয়াপোর্টে পৌঁছান তিনি। শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশে নারী শিক্ষার প্রসার এবং নারী উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে অগ্রণী ভূমিকা পালনের স্বীকৃতি হিসেবে গ্লোবাল উইমেন’স লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড- ২০১৮ সম্মাননা দেয়া হবে।

এর আগে বৃহষ্পতিবার থাই এয়ারওয়েজের একটি বিমানে সিডনির উদ্দেশ্যে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী। ব্যাংককে যাত্রাবিরতির পর বিমানটি সিডনি পৌছে। ২৯ এপ্রিল অস্ট্রেলিয়া ত্যাগ করে পরদিন প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুলের আমন্ত্রণে এই সফরেই তিনি নারী নেতৃত্বে সফলতার স্বীকৃতি হিসেবে সম্মানজনক ‘গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ গ্রহণ করবেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে থাইল্যান্ডের ব্যাংককের যাত্রাবিরতি করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রায় আড়াই ঘণ্টা যাত্রাবিরতীর পর স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দিনি সিডনির উদ্দেশ্যে রওনা হন।

ছোট বোন শেখ রেহানা, পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকী এই সফরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গী হয়েছেন। ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত এই সফরে তারা সিডনির হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে থাকবেন।

সফরের প্রথম দিন সকালেই অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জুলি বিশপ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এছাড়া ভিয়েতনামের ভাইস প্রেসিডেন্ট উয়েন লুয়ং বাংয়ের সঙ্গে সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ হবে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় সিডনির ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে প্রধানমন্ত্রীর হাতে ‘গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দেওয়া হবে।

নারীর ক্ষমতায়ন এবং জাতীয় উন্নয়নে তাদের মূলধারায় নিয়ে আসার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরে সেখানে বক্তব্য দেবেন শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশসহ এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে নারী শিক্ষা ও ব্যবসায়িক উদ্যোগের বিষয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের জন্য যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংস্থা ‘গ্লোবাল সামিট অব উইমেন’ এ পুরস্কার দিচ্ছে।

সফরের দ্বিতীয় দিন শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী ওয়েস্টার্ন সিডনি ইউনিভার্সিটি পরিদর্শন করবেন। বিকালে সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার সরকার প্রধানের বাসভবনে প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুলের সঙ্গে শেখ হাসিনার দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হবে।

ওই বৈঠকে শিক্ষা, ক্রীড়া, মানবসম্পদ উন্নয়ন, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ, কৃষি এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে সহযোগিতার বিষয়গুলো প্রাধান্য পাবে বলে গত মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী।

শনিবার সন্ধ্যায় সিডনির সোফেটেল হোটেলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। সফর শেষে রোববার বিকালে তিনি দেশের উদ্দেশ্য রওনা হবেন।

২২তম কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে সর্বশেষ ২০১১ সালে অস্ট্রেলিয়া সফরে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।