স্বাধীনতার ৪৬ বছরেও বাউফলের অনেক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার পায়নি সরকারী সুযোগ সুবিধা

0
96

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে পাক-হানাদার বাহিনী কর্তৃক পটুয়াখালী বাউফলের শতাধিক মানুষ গণহত্যা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে। অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বাড়িঘর। স্বাধীনতার ৪৬ বছর পার হলেও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার এখনও পায়নি কোন সরকারি সুযোগ সুবিধা। ৭১ সালের সেই স্মৃতি স্মরণ করে আজও চোখের পানি ফেলছেন অনেক পরিবার।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে হানাদার বাহিনীর নির্মমতার দৃশ্য ও প্রিয়জন হারানোর বেদনায় আজও চোখের পানি ফেলছে পটুয়াখালী বাউফলের অনেক পরিবার। স্বাধীনতার ৪৬ বছর পার হলেও ক্ষতিগ্রস্থ অনেক মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এখনও পায়নি কোন সরকারি সুযোগ সুবিধা।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের তথ্যানুসারে, বাউফল উপজেলায় ৫৬৮ জন মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভূক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছে ১৭১ জন আর মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা পাচ্ছেন ৪৫৮ জন।

বেসরকারি জরিপ বলছে, বাউফল উপজেলায় সহস্রাধিক মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে। যাদের ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ অংশগ্রহন ছিল। কিন্তু প্রমাণপত্র উপস্থাপন ব্যর্থ হওয়ায়, গেজেটভুক্ত তালিকায় নাম অন্তর্ভূক্ত হয়নি তাদের।

বাউফলে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামে নেই কোন নামফলক, সংরক্ষণ করা হয়নি গণকবর। সময়ের সাথে ইতিহাসগুলো ভুলে যাচ্ছে নতুন প্রজন্ম।

মুক্তিযোদ্ধা ক্ষেত্রে বৈষম্য না করে, উপযুক্ত সম্মান ও প্রয়োজনীয় সহয়তা দিয়ে দেশের মর্যাদা অক্ষুন্ন রাখার দাবী সুবিধাবঞ্চিত মুক্তিযোদ্ধা পরিবারগুলোর।