হরিণ হত্যা মামলায় সালমান আসল দোষীকে আড়াল করছেন !

0
391

কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর দু’রাত জেলে কাটিয়েছেন বলিউডের ভাইজান সালমান খান। এই মুহূর্তে রাজস্থানের জোধপুর সেশনস কোর্টের নির্দেশে অন্তর্বর্তী জামিনে রয়েছেন বলিউডে এই সুপার স্টার।

তবে সত্যিই কি কৃষ্ণসার হরিণ মেরেছিলেন সালমান খান? নাকি অন্য কেউ হত্যা করেছিলেন? আর তাঁকেই এত বছর ধরে আড়াল করছেন অভিনেতা?

ঠিক এমন প্রশ্নই তুললেন সিমি গারেওয়াল। টুইটারে তিনি লিখেছেন, এখানে যেটা গুরুত্বপূর্ণ তা হল সালমান ট্রিগারে চাপ দেননি। উনি কোনও অপরাধ করেননি। ইমোশনাল হয়ে উনি অন্য কাউকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। আর নিজে তার অনেক মূল্য দিচ্ছেন।

সালমানের পাঁচ বছরের সাজা ঘোষণা হওয়ার পর গত ৬ এপ্রিল এই টুইট করা হয়েছে। তবে অ্যাকাউন্টটি সিমির নামে হলেও তা ভেরিফায়েড নয়। তার আগের দিন ওই একই অ্যাকাউন্ট থেকে লেখা হয়, একটা বিষয়ে আমি নিশ্চিত সালমান কখনও কোনও প্রাণীকে আঘাত করতে পারে না। সালমান ওদের ভালবাসে। আসল অপরাধীর মুখোশ খোলা উচিত।

ঘটনার দিন সালমানের সঙ্গে ছিলেন সাইফ আলি খান, সোনালী বেন্দ্রে, তাব্বু এবং নীলম। প্রমাণের অভাবে বাকি চারজন এই মামলা থেকে নিষ্কৃতি পান। তবে সিমির টুইটের পর প্রশ্ন উঠছে, সালমান ছাড়া বাকি চারজনের কেউ কি হরিণ মেরেছিলেন?

যার দায় ২০ বছর ধরে বয়ে বেড়াচ্ছেন সালমান খান? তবে টুইটার অ্যাকাউন্টটি ভেরিফায়েড না হওয়ার কারণে এই বক্তব্য সিমির কিনা তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

 

সিমি গারেওয়াল একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। ভারতের একটি গারেওয়াল পরিবারে ১৯৪৪ সালে তার জন্ম। তার বাবা ছিলেন ভারত সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার। সে সূত্রে ইংল্যান্ডে অনেকদিন থেকেছেন।

ইংরেজি এ্যাকসেন্টে বিশেষ দক্ষ হওয়ার কারণে তিনি ১৯৬২ সালে ফিরোজ খানের বিপরীতে “টারজান গোস টু ইন্ডিয়া” নামক ইংরেজি চলচ্চিত্রে অভিনয় করার সুযোগ পান।

বাংলা চলচ্চিত্রের প্রখ্যাত পরিচালক সত্যজিৎ রায় তার অরণ্যের দিনরাত্রি চলচ্চিত্রে সিমিকে দিয়ে এক আদিবাসী মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করিয়েছিলেন।