হাঁটুর ব্যথা উপশমে কিছু ঘরোয়া টিপস

0
501

সকালে উঠে পা ফেলতে কষ্ট হয়? অসহ্য হাঁটুর ব্যথায় ভুগছেন? হাঁটুর ব্যথা বা গাঁটের সমস্যা এখন আর বয়সের গণ্ডিতে আটকে নয়। যে কোনও বয়সেই হানা দিতে পারে এই সমস্যা।

ক্যালসিয়ামের অভাব, অনিয়মিত ডায়েট, শরীরচর্চার ঘাটতি গাঁটের ব্যথার মূল কারণ। আসুন দেখে নেওয়া ব্যথা উপশমের কিছু ঘরোয়া নিদান।

হলুদ ও আদা চা:

দু’কাপ জলে হলুদ ও আদা ফুটিয়ে সেটিকে হাফ কাপ করুন। এ বার ওই মিশ্রণে এক চামচ মধু মিশিয়ে দিনে অন্তত দু’বার খান। হলুদ ও আদায় রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ব্যথা নিরাময়ে সক্রিয় ভূমিকা নেয়। হলুদের মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কারকিউমিন ব্যথা তৈরি করা হরমোনের নিঃসরণ কমিয়ে দেয়।

লবণ পানির সেঁক:

সৈন্ধব লবনের কথা জানেন নিশ্চয়ই? ম্যাগনেসিয়াম সালফেট সমৃদ্ধ সৈন্ধব লবণ যে কোনও ব্যথা-বেদনা উপশমে খুবই উপকারী। এক কাপ সৈন্ধব লবণ জলের মধ্যে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এ বার সেটা ফুটিয়ে ব্যথার জায়গায় সেঁক দিন। লবন পানিতে গোসল করলেও আরাম পাবেন।

ঠান্ডা-গরম প্যাক:

চিকিৎসকের পরামর্শ মতো থেরাপিউটিক জেল কিনে নিন। এবার সেটা গরম করে ব্যথার জায়গায় ১৫ মিনিট ধরে মালিশ করুন। জায়গাটা গরম হয়ে উঠলে প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে বরফ লাগিয়ে নিন। এভাবে পালা করে গরম জেল এবং বরফের সেঁক নিন। ব্যথা দ্রুত নিরাময় হয়ে যাবে।

মেথি:

যে কোনও জ্বালা-যন্ত্রণা কমাতে মেথির জুরি মেলা ভার। এর মধ্যে রয়েছে উচ্চমাত্রায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। গাঁটের ব্যথায় কষ্ট পেলে প্রতিদিন নিয়ম করে উষ্ণ গরম পানিতে মেথি বীজ ভিজিয়ে খেতে পারেন। অথবা, সারা রাত ভিজিয়ে রাখা মেথির জল সকালে খালি পেটে খেলেও অনেক উপকার পাবেন।

অ্যাপেল সিডার ভিনেগার:

অ্যাপেল সিডার ভিনেগারে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ফসফরাস যা আক্রান্ত জায়গার টক্সিন টেনে বার করে দেয়। বাতের ব্যথা কমাতেও উপকারী এটি। এক কাপ উষ্ণ গরম পানিতে  দুই চামচ ভিনেগার ও কয়েক ফোঁটা মধু মিশিয়ে দিনে ৩-৪ বার খান। অ্যাপেল সিডারে ওলিভ ওয়েল মিশিয়ে মালিশ করলেও উপকার পাবেন।

গাজর-লেবুর জুস:

দুইটি গাজর পিষে তার রস বার করে নিন। এ বার তাতে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে জুস বানিয়ে খালি পেটে খান। নিয়মিত এই জুস খেলে কিছুদিন বাদেই টের পাবেন ব্যথা অনেক কমেছে।

পিপারমিন্ট ও ইউক্যালিপটাস তেল:

ব্যথা নিরাময়ে পিপারমিন্ট এবং ইউক্যালিপটাস তেলের কোনও তুলনাই নেই। ৫-৬ ফোঁটা পিপারমিন্ট ও ইউক্যালিপটাস তেলের সঙ্গে নারকেল, ওলিভ বা আমন্ড তেল মিশিয়ে ব্যথার জায়গায় নিয়মিত মালিশ করলে অনেক উপকার পাবেন।

মরিচের গুঁড়ো:

শুকনো লাল মরিচে রয়েছে ব্যথানাশক উপাদান ক্যাপসাইসিন। বিশেষজ্ঞদের কথায়, অস্টিওআর্থ্রাইটিসের ব্যথা উপশমে খুবই উপকারী এই ক্যাপসাইসিন। হাফ কাপ নারকেল তেলে দু’চামচ মরিচ গুঁড়ো মিশিয়ে ব্যথার জায়গায় মালিশ করুন। এ বার ২০ মিনিট রেখে উষ্ণ গরম পানিতে জায়গাটা পরিষ্কার করে নিন। দিনে ৪-৫ বার এভাবে মালিশ করুন। ব্যথা অনেক কমে যাবে।